মেয়ের জন্য করোনার টিকা নেওয়া পাত্র চেয়ে বিজ্ঞাপন!

মিরর ডেস্ক : মেয়ের জন্য করোনাভাইরাসের টিকার দুই ডোজ নেওয়া পাত্র চেয়ে বিজ্ঞাপন দিয়ে আলোচনায় এসেছেন এক বাবা। সেই বিজ্ঞাপনে তিনি জানিয়েছেন, তার মেয়েরও করোনার টিকার দুই ডোজ নেওয়া আছে। মেয়ের জন্য তিনি করোনা টিকা নেওয়া পাত্র খুঁজছেন। এই বিজ্ঞাপন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যাওয়ার পর ব্যাপক সাড়াও পাচ্ছেন তিনি। মেয়ের জন্য পাত্র চেয়ে এমন বিজ্ঞাপন দিয়েছেন ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য গোয়ার এক বাবা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, ৪৫ বছর বয়সী সাভিয়ো ফিগেরিদো গোয়ার বাসিন্দা। গত ৪ জুন তিনি ফেসবুকে মেয়ের পাত্র চেয়ে বিজ্ঞাপন দেন। যেখানে তিনি লেখেন, ২৪ বছর বয়সী রোমান, ক্যাথলিক পাত্রীর জন্য উপযুক্ত পাত্র চাই। পাত্রের কোভিশিল্ডের দু’টি ডোজ নেওয়া থাকতে হবে। পাত্রীরও এই টিকার দু’টি ডোজ নেওয়া আছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে সাভিয়োর ওই পোস্ট। কোনও সংবাদপত্রে নয়, একটি অ্যাপের মাধ্যমে নিজস্ব বয়ানকে খবরের কাগজের বিজ্ঞাপনের এফেক্ট দিয়ে পোস্ট করেছেন সাভিয়ো। উদ্দেশ্য- সবার মাঝে কোভিড টিকা নেওয়ার গুরুত্ব প্রচার করা। পোস্টের শুরুতে সাভিয়ো লিখেছেন- ‘দ্য ফিউচার অব ম্যাট্রিমোনিয়ালস!’

বিষয়টি নজরে আসার পর কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর টুইটে লেখেন, ‘ভ্যাকসিন-প্রাপ্ত কন্যা ভ্যাকসিন-প্রাপ্ত পাত্র চাইছেন! কোনও সন্দেহ নেই, বিয়ের পছন্দের উপহার হতে চলেছে একটা বুস্টার শট!? এটাই কি আমাদের নিউ নরমাল হতে চলেছে?’

মঙ্গলবার টেলিফোনে দেশটির এক সংবাদমাধ্যমকে সাভিয়ো বলেন, ‘আমি প্রথমে পোস্ট দিয়েছিলাম ফেসবুকে। গত তিন-চার দিনে শ্রীলঙ্কা, আমেরিকা থেকেও ফোন পেয়েছি। অনেক পাত্র যোগাযোগ করে জানাচ্ছেন, তাদের কোভিড টিকার ডোজ সম্পূর্ণ হয়েছে। তারা আমার মেয়েকে বিয়ে করতে চান। বেশ মজা লাগছে।’

কেন এমন বিজ্ঞাপন? সাভিয়ো জানান, তিনি ফার্মাসিস্ট, স্থানীয় এলাকায় ওষুধের দোকান আছে। বলেন, ‘করোনা-মৃত্যুর থেকে মুক্তির উপায় গণ-টিকাদান। কিন্তু লোকজনের মাঝে এখনও ভ্যাকসিন নিয়ে ভয় কাজ করছে। আমার দুই বন্ধুকে কোভিডের কারণে কিছুদিন আগে হারিয়েছি। বারবার তাদের বলেছিলাম টিকা নিতে। কিন্তু কথা শোনেননি। তাই ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য প্রচার করছি।’ পাত্রী কী বলছেন? বাবার জবাব- ‘মেয়ে তো হেসেই খুন! বলছে- বাবা, তুমি পারো বটে!’

তবে গল্পের মোড়কে রয়েছে আরো চমক। সবশেষে, বিজ্ঞাপনদাতা বাবা জানান, ২২ বছর বয়সী কন্যার বয়ফ্রেন্ড রয়েছে। ফলে পাত্ররা যতই ফোন করুন না কেন, আপাতত তাদের কারো সঙ্গেই মেয়ের বিয়ে হচ্ছে না।