এবার লাটভিয়াকে ‘সেভেন আপ’-এর স্বাদ দিল জার্মানি!

মিরর স্পোর্টস : ২০১৪ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ঘরের মাঠ ‘মিনেইরোজো’তে ব্রাজিলকে ৭-১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছিল জার্মানি। যা ফুটবল–সমর্থকদের কাছে ‘সেভেন আপ’ নামে পরিচিত। এবার সেই ‘সেভেন আপ’-এর স্বাদ লাটভিয়াকেও উপহার দিল জার্মানি।

সোমবার (০৭ জুন) রাতে ডুসেলডর্ফে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে ৭-১ গোলে জিতেছে চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। প্রথমার্ধেই ৫-০ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়েছিল তারা। স্বাগতিকদের হয়ে একটি করে গোল করেন টমাস মুলার, সের্গে জিনাব্রি, ইলকাই গিনদোয়ান, রবিন গোজেন্স, টিমো ভেরনার ও লেরয় সানে। অন্যটি প্রতিপক্ষের আত্মঘাতী।

ইউরো ২০২০ আসরের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে গত বুধবার ডেনমার্কের সঙ্গে ১-১-এ ড্র করা জার্মানি এদিন শুরুর চার মিনিটেই গোল পেতে পারত দুটি। প্রথমে মুলারের শট ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক রবার্টস ওজলস। কাই হাভার্টজের শট অল্পের জন্য লক্ষ্যে থাকেনি। তবে পরে তিন মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা।

১৯তম মিনিটে বাঁ দিকের বাইলাইনের কাছ থেকে হাভার্টজের পাসে গোলের সূচনা করেন আতালান্তার ডিফেন্ডার গোজেন্স। আর ডি-বক্সের ভেতর থেকে বাঁ পায়ের জোরালো শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ম্যানচেস্টার সিটির মিডফিল্ডার গিনদোয়ান।

২৭তম মিনিটে গোজেন্সের পাসে ছয় গজ বক্সের সামনে থেকে শটে ব্যবধান বাড়ান মুলার। ৩৯তম মিনিটে দুরূহ কোণ থেকে হাভার্টজের নেওয়া শট ঠেকাতে গিয়ে নিজেদের জালে বল পাঠান গোলরক্ষক ওজলস। বিরতির আগে স্কোরলাইন ৫-০ করেন জিনাব্রি।

প্রথমার্ধে গোলের উদ্দেশ্যে ১৫টি শট নেয় জার্মানি, এর ৬টি ছিল লক্ষ্যে। সব শেষে দেখা যায়, ২০০৪ ইউরোর গ্রুপ পর্বে জার্মানির বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করা লাটভিয়া শট নিতে পারে কেবল একটি। দেশের হয়ে শততম ম্যাচ খেলতে নামা গোলরক্ষক মানুয়েল নয়ারকে বিরতির আগে দিতে হয়নি কোনো পরীক্ষা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বদলি নামার চার মিনিট পরই জালের দেখা পান ভেরনার। জসুয়া কিমিচের পাসে কাছ থেকে গোলটি করেন চেলসির এই ফরোয়ার্ড।

৭৫তম মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে বাঁ পায়ের শটে চমৎকার গোলে ব্যবধান কমান লাটভিয়ার মিডফিল্ডার সাভেলিয়েভস। অবশ্য পরের মিনিটেই কাছ থেকে বল জালে পাঠিয়ে ব্যবধান আবার বাড়িয়ে নেন দ্বিতীয়ার্ধে বদলি নামা সানে।

আগামী ১৫ জুন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ইউরোর পথচলা শুরু করবে জার্মানি। ‘এফ’ গ্রুপে তাদের অন্য দুই প্রতিপক্ষ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল ও হাঙ্গেরি।