হেফাজতের নতুন কমিটি ঘোষণা, নেতৃত্বে বাবুনগরী-জিহাদীই

ঢাকা : অবশেষে বহুল আলোচিত-সমালোচিত সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।সোমবার বেলা ১১টায় খিলগাঁও মাখজানুল উলুম মাদরাসায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন এ কমিটি ঘোষণা করা হয়। জেলে থাকা ও রাজনৈতিক পরিচয়ধারী নেতাদের বাদ দেয়া হয়েছে নতুন কমিটিতে। কমিটিতে জুনায়েদ বাবুনগরীকে আমির এবং নুরুল ইসলাম জিহাদীকে মহাসচিব হিসেবে বহাল রাখা হয়েছে। কমিটির বর্তমান পরিধি ৩৩ সদস্যবিশিষ্ট। সেখানে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত আমির শাহ আহমদ শফীর বড় ছেলে মো. ইউসুফকেও রাখা হয়েছে।

হেফাজতের প্রয়াত আমির ও হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক শাহ আহমদ শফী গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর মারা যান। এর পর নানান আলোচনার মধ্যে ১৫ নভেম্বর সম্মেলনের মাধ্যমে বাবুনগরীকে আমির করে হেফাজতের ১৫১ সদস্যের কমিটি গঠিত হয়। ১৫১ সদস্যের ওই কমিটিতে আহমদ শফীর অনুসারীরা কেউ জায়গা পাননি। তবে নতুন কমিটি গঠনের ছয় মাস পার হওয়ার আগেই নরেন্দ্র মোদির সফরকেন্দ্রিক বিক্ষোভ থেকে সহিংসতার ঘটনার পর পুলিশি অভিযানে চাপে থাকা হেফাজতের সেই কমিটি এ বছরের ২৫ এপ্রিল রাতে বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।

সেদিন রাতে হেফাজতে ইসলামের ফেসবুক পেজে এক মিনিট ২৪ সেকেন্ডের একটি ভিডিও বার্তা দিয়ে কমিটি বিলুপ্তির কথা জানান জুনাইদ বাবুনগরী। সে ভিডিওতেই নতুন একটি আহ্বায়ক কমিটির মাধ্যমে হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালিত হবে বলে জানান বাবুনগরী।সেদিন রাতেই কমিটি বিলুপ্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই হেফাজতের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। দুই দফার বিজ্ঞপ্তিতে হেফাজতের বিলুপ্ত কমিটির উপদেষ্টা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরীর নেতৃত্বে আমির জুনাইদ বাবুনগরী ও মহাসচিব নুরুল ইসলাম জিহাদীকে রাখা হয়। সেখানে আগের কমিটির সালাহ উদ্দিন নানুপুরী ও মিজানুর রহমান চৌধুরীকে যুক্ত করে মোট পাঁচ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি করা হয়।

আহ্বায়ক কমিটি ‘অতি দ্রুত’ হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের পূর্ণাঙ্গ আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করবে বলেও সেদিনের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। তবে তা আর হয়নি। এ ঘটনার পর হেফাজতের শীর্ষ পর্যায়ের অর্ধ শতাধিক নেতা গ্রেফতার হন। বর্তমানে তাদের প্রায় সবাই কারাগারে রয়েছেন। এরপর কয়েক দফায় হেফাজত মহাসচিব নুরুল ইসলাম জিহাদী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

সেসব সাক্ষাতের পর সরকারের সঙ্গে হেফাজতের সমঝোতা চেষ্টাসহ নানান ধরনের খবর প্রচারিত হয়। যদিও কোনো পক্ষ থেকেই এসব নিয়ে কোনো কিছু স্পষ্ট করা হয়নি। তারই ধারাবাহিকতায় আজ নতুন কমিটি ঘোষণা করা হলো। এবারের কমিটিতে ফিরলেন শাহ আহমদ শফীর ছেলে।