মহাখালীর সাততলা বস্তিতে বারবার কেন আগুন লাগছে?

ঢাকা : রাজধানী ঢাকা শহরের মহাখালীর সাততলা বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা নতুন নয়। এর আগেও বেশ কয়েকবার এখানে আগুন লেগেছে। ২০১২, ২০১৫ ও ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে এবং ২০২০ সালের ২৪ এই বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রতিবারই বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। অবৈধ বৈদ্যুতিক সংযোগের দুর্বল তারের কারণেই এমন ঘটনা ঘটেছে। আর সেই ঝুঁকি এখনও রয়ে গেছে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

সবশেষ সোমবারের (৭ জুন) আগুনে বস্তির প্রায় শতাধিক ঘরে পুড়ে ছাই হয়েছে বলে জানায় ফায়ার সার্ভিস। সঙ্গে পুড়ে গেছে ঘরে থাকা অনেক আসবাবপত্রও। আগুন নিয়ন্ত্রণের পর সরেজমিনে সাততলা বস্তিতে গিয়ে অবৈধ গ্যাস সংযোগের চিত্র দেখা যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, সাততলা বস্তির ভেতর ছোট ছোট চিপা গলিতে যত্রতত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অবৈধ গ্যাস লাইন। পায়ে হাঁটা রাস্তার ওপর দিয়ে অরক্ষিতভাবে নেয়া হয়েছে অধিকাংশ অবৈধ গ্যাস সংযোগের লাইন। এসব লাইনের ওপর দিয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা প্রতিনিয়ত চলাচল করে। আবার অনেকের রান্না ঘরের চুলাও বসানো হয়েছে অরক্ষিত এসব গ্যাস লাইনের খুব কাছে। এছাড়া সংযোগ লাইনের ওপর আবর্জনা থেকে শুরু করে রয়েছে বিভিন্ন দাহ্য পদার্থ। এভাবেই সমগ্র সাততলা বস্তি জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অবৈধ গ্যাস সংযোগের লাইন।

বস্তিতে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করা সাবিনা আক্তার নামে একজন বলেন, বার বার এই বস্তিতে আগুন লাগার কারণে আমরা অসহায়। একেকবার আগুনে ঘরের খাবার থেকে শুরু করে সব আসবাবপত্র পুড়ে যায়। আমরা গরিব মানুষ। কিন্তু আমাদের মতো গরিবদের কথা কেউ ভাবে না।

বস্তিতে বাস করা রিকশাচালক আনসার আলী জানান, গত চারবারের আগুনে দুইবার আমার ঘর পুড়ে যায়। ঘিঞ্জি বস্তি হওয়ায় ঘর থেকে কিছুই বের করতে পারিনি। আর এবারের আগুনের সময় আমরা সবাই গভীর ঘুমে ছিলাম। এই সময় আগুনে আমাদের সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে যায়। ঘর থেকে কিছুই বের করতে পারিনি। সরকারের উচিত বার বার কেন আগুন লাগে, কেউ ইচ্ছা করে আগুন লাগিয়ে দেয় কি-না সেসব বিষয়ে কিছু খুঁজে বের করা।

কেন বারবার আগুন লাগছে এই সাততলা বস্তিতে? এমন প্রশ্নের জবাবে ঢাকা বিভাগ ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক দেবাশীষ বর্ধন বলেন, ঢাকার অন্যান্য বস্তিতে যেভাবে আগুন লাগে সাততলা বস্তিও এর বাইরে না। বস্তিতে দাহ্য পদার্থ, বাঁশ, কাঠ দিয়ে তৈরি ঘর আবার অনেক ঘর দোতলা এসব কারণে এক ঘর থেকে আরেক ঘরে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।

অবৈধ গ্যাস সংযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, গ্যাসের লাইনগুলো কতটুকু বৈধ-অবৈধ জানি না। তবে কিছু লাইন অবৈধ থাকতে পারে এবং এখানে বিদ্যুতের লাইনও অবৈধ। কী কারণে আগুন লেগেছে তা তদন্তে বেরিয়ে আসবে।