‘টিকটক হৃদয়’ গ্রুপের দুই সদস্য গ্রেফতার

মিরর ডেস্ক : নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে আর্ন্তজাতিক নারী পাচারকারী চক্র ‌‘টিকটক হৃদয়’ গ্রুপের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১। শুক্রবার (৪ জুন) গভীর রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সদর উপজেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের শিমরাইল এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- মোঃ রুবেল সরকার ওরফে রাহুল (৩২) ও তার স্ত্রী সোনিয়া (২৫)। তারা দুইজনই সাম্প্রতিক নারী পাচারকারী চক্র হিসেবে আলোচনায় আসা টিকটক হৃদয় গ্রুপের সক্রিয় সদস্য।

র‌্যাব-১১’র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ সম্রাট তালুকদার প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে ও প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা গেছে তারা একটি সংঘবদ্ধ আর্ন্তজাতিক নারী পাচারকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য। চক্রটি ১৫ থেকে ২৫ বছর বয়সী সুন্দরী তরুণীদের টার্গেট করে সম্পির্ক তৈরি করে। পরে বিদেশে উচ্চ বেতনে চাকুরির প্রলোভন দেখিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন দেশে পাচার করে। এই চক্রের সদস্যরা পাচারকৃত নারীদের হোটেলে নিয়ে গৃহবন্দি করে রাখতো। বিদেশে অবস্থানকালীন সময়ে ওই তরুণীদের কোনো অবস্থাতেই নিজের ইচ্ছায় হোটেল বা বাইরে যেতে দেয়া হতো না। প্রাথমিক অবস্থায় তরুণীরা এসব আসামাজিক কর্মকান্ডে লিপ্ত হতে রাজি না হলে বিভিন্ন নেশাজাতীয় দ্রব্য জোরপূর্বক প্রয়োগ করে অবৈধ যৌনকাজে বাধ্য করা হতো।

র‌্যাব আরো জানায়, গ্রেপ্তারকৃত আসামি মোঃ রুবেল সরকার ওরফে রাহুল ও তার স্ত্রী সোনিয়ার সাথে রিফাদুল ইসলাম হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়ের সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা ডিএমপি ঢাকার হাতিরঝিল থানায় দায়ের করা মামলার এজাহারভূক্ত আসামি।

র‌্যাব-১১ সিনিয়র সহকারি পরিচালক মো: জসীম উদ্দিন চৌধুরী জানান, নারী পাচারকারী এই চক্রের অন্যান্য সদস্যদের চিহ্নিত করতে গ্রেফতারকৃত আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে নারী পাচারের বিষয়ে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। তারা অনেক অপরাধের কথা স্বীকারও করেছে।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, আসামিদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের বিষয়গুলো আমরা খতিয়ে দেখছি।গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়েরসহ প্রয়োজনীয় আইনগত কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।