একসঙ্গে জন্ম নেওয়া ৩ শিশু মারা গেল একে একে!

বরিশাল প্রতিনিধি : অস্ত্রোপচার ছাড়াই একসঙ্গে জন্ম নেওয়া তিন‌টি নবজতক‌কে বাঁচা‌নো গেল না। জন্মের সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা পর একে একে মারা যায় তিন সন্তান। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এই তিন নবজাতক আজ র‌বিবার প্রথম প্রহ‌রে মারা যায়। তিনটি ছেলেসন্তান প্রসব করেন সেলিনা বেগম (২৮) নামের ওই গৃহবধূ।

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শিশু মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক উত্তম কুমার সাহা জানান, শ‌নিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই তিন নবজাতককে শিশু ওয়ার্ডে তাদের স্বজনেরা ভর্তি করেন। ভর্তি করা নবজাতক‌দের ওজন খুব কম ছিল।

তিনি আরো বলেন, কম ওজন ও অপরিণত বয়সে ভূমিষ্ঠ হওয়ায় শ্বাসপ্রশ্বাস নেওয়ার সক্ষমতা কম ছিল। তাছাড়া তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা ছিল না বলেই তাদের শারীরিক অবস্থার দ্রুত অবনতি ঘটে। রাত সাড়ে ১১টা থেকে ১২টার মধ্যে ওই তিন নবজাতক একে একে মারা যায়।

স্বজনেরা জানান, সেলিনা বেগম আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। শনিবার বেলা ২টার দিকে তার প্রসববেদনা ওঠে। পরিবারের সদস্যরা তাকে প্রথমে হিজলা উপজেলা সদর রেমেডি নামে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে যান। কিন্তু ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ রোগীর অবস্থা খারাপ দেখে দ্রুত তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন।

তবে দরিদ্র হওয়ায় তারা সেলিনাকে হিজলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখা‌নে শনিবার বেলা চারটার দিকে প্রথম সন্তান জন্ম দেন সেলিনা। এরপর ৫ মিনিটের ব্যবধানে দ্বিতীয় এবং ১০ মিনিটের ব্যবধানে তৃতীয় সন্তান জন্ম দেন।

জন্মের পরপরই চিকিৎসকেরা উন্নত চিকিৎসার জন্য নবজাতকদের বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু বরিশালে নেওয়ার জন্য অর্থের জোগাড় করতে কয়েক ঘণ্টা লেগে যায়।

এরপর রাত সাড়ে ১০টার দিকে তারা তিন নবজাতককে নিয়ে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পৌঁছান। সেখানে সাড়ে ১১টার পর একে একে তিন নবজাতকের মৃত্যু হয়। সকালে তিন নবজাতকের লাশ গ্রামে নিয়ে এসে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।