ভারতে মন্দির ‘নিরাপত্তায়’ মুসলিমদের ঘর ছাড়তে চাপ দেয়া হচ্ছে

মিরর ডেস্ক : ভারতীয় রেলওয়ে থেকে অবসরপ্রাপ্ত ৭১ বছর বয়সী জাভেদ আখতার। উত্তরপ্রদেশে তার দাদার তৈরি একটি পুরোনো বাড়িতে থাকেন। এই বাড়িতেই তিনি বড় হয়েছেন। ১শ বছর আগের বাড়িটি রাজ্যের একটি পুরোনো হিন্দু মন্দির লাগোয়া।

জাভেদ আখতার জানান, সম্প্রতি তাঁর বাড়িতে আসেন গোরক্ষপুর জেলার কয়েকজন উচ্চপদস্থ সরকারী কর্মকর্তা ও স্থানীয় পুলিশ। এসময় তাদের বাড়ি ও আশপাশের কিছু জমি পরিদর্শন করেন তারা।

পরদিন পুলিশ তাঁকে একটি কাগজে স্বাক্ষর দিতে বলে। যেখানে লেখা ছিল স্থানীয় গোরক্ষনাথ মন্দিরের নিরাপত্তার স্বার্থে তাদের বাড়িটি ছেড়ে দিতে হবে। জায়গাগুলো মন্দিরের জন্য অধিগ্রহণ করা হবে।

শুধু জাভেদ আখতারই নয় সেখানকার কয়েকটি মুসলিম পরিবারের সাথেই ঘটেছে এমন ঘটনা। জাভেদ আখতার আল-জাজিরাকে বলেন এরইমধ্যে কিছু পরিবার পেপারে স্বাক্ষর করে দিয়েছে।

মূলত মন্দিরের ‘নিরাপত্তা’ নিশ্চিতের কারণ দেখিয়ে গোরক্ষনাথ মন্দির লাগোয়া ১১ টি মুসলিম পরিবারকে বাড়ি-ঘর ও সম্পত্তি খালি করার নোটিস পাঠিয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকার।

যে মন্দিরটির জন্য জায়গা অধিগ্রহণ করা হচ্ছে সেটির প্রধান পুরোহিত হচ্ছেন, উত্তরপ্রদেশ মুখ্যমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা যোগী আদিত্যনাথ। এরআগে মন্দিরটির প্রধান পুরোহিত ছিলেন তার বাবা মহন্ত অবৈদ্যনাথ। তিনি ২০১৪ সালে মারা গেলে বাবার স্থলাভিষিক্ত হোন যোগী আদিত্যনাথ। এছাড়া ২০১৭ সাল থেকে যোগী আদিত্যনাথ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর দায়ীত্ব পালন করে আসছেন। এরআগে তিনি উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুর থেকে একটানা পাঁচবার সংসদ সদস্যও ছিলেন।

দুই কোটি ২০ লাখ জনসংখ্যার এ রাজ্যের ২০ শতাংশ মুসলিম। উত্তরপ্রদেশে ধর্মীয় সহিংসতার লম্বা ইতিহাস রয়েছে।

সূত্র: আল-জাজিরা