গরমের সময়ে ত্বকের ও চুল জন্য কী করা প্রয়োজন

মিরর ডেস্ক : রোদের তাপে মাত্র ১০ মিনিট থাকলেই ত্বকে রোদে পোড়া ভাব চলে আসতে পারে। এমনকি যাঁরা ঘরে থাকেন, তাঁরা বারান্দার রোদের কারণেও এমন সমস্যায় পড়তে পারেন। পানিশূন্যতায় চুল ও ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ ছাড়া গরমে ঘেমে গিয়ে চুলের গোড়া ভিজে থাকার কারণে খুশকিও হতে পারে।

জেনে নেওয়া যাক এই সময়ে ত্বকের জন্য কী করা প্রয়োজন—

* আধা চা-চামচ শসার রসের সঙ্গে আধা চা-চামচ দুধ ও আধা চা-চামচ মধু মিশিয়ে ফ্রিজে রাখুন। ঠান্ডা হলে ত্বকে লাগিয়ে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। তবে তৈলাক্ত ত্বকের জন্য শুধু শসার রস বা শসা কুচি ব্যবহার করতে হবে।
* একইভাবে শসার রসের পরিবর্তে বাঙ্গির রসও ব্যবহার করতে পারেন। ত্বক তৈলাক্ত হলে এ ক্ষেত্রে দুধ ও মধু বাদ দিয়ে দিন।
* এক টেবিল চামচ তরমুজের রসের সঙ্গে আধা চা-চামচ মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করেও একই পদ্ধতিতে ব্যবহার করতে পারেন।
* যাঁদের ত্বক খুব তৈলাক্ত কিংবা যাঁরা ব্রণের সমস্যায় ভুগছেন, তাঁরা খুব সামান্য পরিমাণ আনারসের রসের সঙ্গে সমপরিমাণ গোলাপজল মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে পারেন। চাইলে এক টেবিল চামচ মুলতানি মাটি কিংবা বেসন যোগ করতে পারেন। ২০ মিনিটের বেশি সময় মিশ্রণ ত্বকে লাগিয়ে রাখবেন না।
* টোনিং-এর জন্য তরমুজের রসের সঙ্গে টকদই মিশিয়ে পুরো মুখে লাগাতে পারেন। ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।
সপ্তাহে একবার স্ক্রাবিং প্রয়োজন। এর জন্য বাঙ্গি, তরমুজ বা শসার রসের মধ্যে যেকোনোটি বেছে নিতে পারেন। ফলের রসের সঙ্গে চালের গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। ত্বক স্বাভাবিক বা শুষ্ক হলে এর সঙ্গে দুধ ও মধু যোগ করতে পারেন। স্বাভাবিক ত্বকের জন্য জলপাই তেলও যোগ করতে পারেন। ত্বক শুষ্ক হলে ফলের রস আর চালের গুঁড়োর সঙ্গে যোগ করতে পারেন ২-৩ ফোঁটা লেবুর রস। মুখের ত্বক ছাড়াও হাত ও পায়ের ত্বক স্ক্রাব করা প্রয়োজন।
•যাঁদের ত্বক সংবেদনশীল, তাঁদের কখনোই স্ক্রাবার ব্যবহার করা উচিত নয়। তাঁরা টকদই ব্যবহার করতে পারেন। চাইলে এর সঙ্গে একটু সয়াবিন পাউডার যোগ করে নিতে পারেন। কোনো মিশ্রণ খুব বেশিক্ষণ ত্বকে লাগিয়ে রাখবেন না।—
* আধা চা-চামচ শসার রসের সঙ্গে আধা চা-চামচ দুধ ও আধা চা-চামচ মধু মিশিয়ে ফ্রিজে রাখুন। ঠান্ডা হলে ত্বকে লাগিয়ে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। তবে তৈলাক্ত ত্বকের জন্য শুধু শসার রস বা শসা কুচি ব্যবহার করতে হবে।
* একইভাবে শসার রসের পরিবর্তে বাঙ্গির রসও ব্যবহার করতে পারেন। ত্বক তৈলাক্ত হলে এ ক্ষেত্রে দুধ ও মধু বাদ দিয়ে দিন।
* এক টেবিল চামচ তরমুজের রসের সঙ্গে আধা চা-চামচ মধু মিশিয়ে প্যাক তৈরি করেও একই পদ্ধতিতে ব্যবহার করতে পারেন।
* যাঁদের ত্বক খুব তৈলাক্ত কিংবা যাঁরা ব্রণের সমস্যায় ভুগছেন, তাঁরা খুব সামান্য পরিমাণ আনারসের রসের সঙ্গে সমপরিমাণ গোলাপজল মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে পারেন। চাইলে এক টেবিল চামচ মুলতানি মাটি কিংবা বেসন যোগ করতে পারেন। ২০ মিনিটের বেশি সময় মিশ্রণ ত্বকে লাগিয়ে রাখবেন না।
* টোনিং-এর জন্য তরমুজের রসের সঙ্গে টকদই মিশিয়ে পুরো মুখে লাগাতে পারেন। ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।
সপ্তাহে একবার স্ক্রাবিং প্রয়োজন। এর জন্য বাঙ্গি, তরমুজ বা শসার রসের মধ্যে যেকোনোটি বেছে নিতে পারেন। ফলের রসের সঙ্গে চালের গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। ত্বক স্বাভাবিক বা শুষ্ক হলে এর সঙ্গে দুধ ও মধু যোগ করতে পারেন। স্বাভাবিক ত্বকের জন্য জলপাই তেলও যোগ করতে পারেন। ত্বক শুষ্ক হলে ফলের রস আর চালের গুঁড়োর সঙ্গে যোগ করতে পারেন ২-৩ ফোঁটা লেবুর রস। মুখের ত্বক ছাড়াও হাত ও পায়ের ত্বক স্ক্রাব করা প্রয়োজন।
•যাঁদের ত্বক সংবেদনশীল, তাঁদের কখনোই স্ক্রাবার ব্যবহার করা উচিত নয়। তাঁরা টকদই ব্যবহার করতে পারেন। চাইলে এর সঙ্গে একটু সয়াবিন পাউডার যোগ করে নিতে পারেন। কোনো মিশ্রণ খুব বেশিক্ষণ ত্বকে লাগিয়ে রাখবেন না।