সাধারণ নাগরিকের সুবিধাও পাচ্ছেন না খালেদা জিয়া: নজরুল ইসলাম

ঢাকা : খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, একজন সাধারণ নাগরিক কিংবা অন্যান্য রাজনীতিবিদ চিকিৎসার যে সুযোগ পান, সাবেক প্রধানমন্ত্রী হয়েও সর্বাধিক জনপ্রিয় নেতা খালেদা জিয়াকে সেই সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। উন্নত চিচিকৎসার সুবিধার্থে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়ার পাশাপাশি ও সব ধরনের বিধি নিষেধ প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি।

মঙ্গলবার (১ জুন) জিয়াউর রহমানের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে কিশোরগঞ্জ ও নেত্রকোণা জেলা বিএনপির আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভায় নজরুল ইসলাম খান প্রধান ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। এসময় তিনি আরও বলেন, সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করছে।

নজরুল ইসলাম বলেন, আপস করে ক্ষমতায় যাওয়ার দল বিএনপি নয়। বিএনপি যদি ১/১১-এর সরকারের সঙ্গে সাথে আপস করতো, তাহলে ২০০৮ সালেই ক্ষমতায় থাকতে পারতো। তারা সর্ব প্রথম বেগম খালেদা জিয়ার কাছেই আপসের প্রস্তাব নিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু জনগণের স্বার্থে বেগম খালেদা জিয়া আপস করেননি বলে দাবি করেন নজরুল ইসলাম খান।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘শহীদ জিয়া অসাধারণ মানুষ ছিলেন। স্বাধীনতার ঘোষক, দেশের সর্বোত্তম মুক্তিযোদ্ধা। শহীদ জিয়ার খেতাব কেড়ে নেওয়ার ষড়যন্ত্র করছে সরকার। যা অত্যন্ত গর্হিত এবং সরকারের ভ্রষ্টাচার নীতির অংশ। আওয়ামী লীগ যেখানে ব্যর্থ, জিয়াউর রহমান ও বিএনপি সেখানে সফল।’

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শাজাহান ওমর বীর উত্তম বলেন, জিয়াউর রহমান একজন ক্ষণজন্মা পুরুষ। তিনি একজন শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদী। জাতীয়তাবাদের মৃত্যু হয় করুণ। জিয়াউর রহমানের মৃত্যুও তাই হয়েছে। কারণ তিনি কারও কাছে মাথা নত করেননি। দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রে তাকে হত্যা করা হয়। কিন্তু তার রাজনীতি ও আদর্শকে হত্যা করা সম্ভব হয়নি।

আলোচনা সভায় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সাহে প্রিন্স, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়ারেস আলী মামুন যুক্ত ছিলেন। এছাড়া কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি- শরিফুল আলম এবং নেত্রকোনা জেলা বিএনপির আহবায়ক ডা. আনোয়ারুল হক উপস্থিত ছিলেন।