মুন্নীর চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন পুরন হলো

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর : দিনাজপুর সদর-৩ আসনের সাংসদ ও জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম-এর হস্তক্ষেপে অসহায় ও হতদরিদ্র পরিবারের মেয়ে পাবনা জেলার শিক্ষার্থী মুন্নীর চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন পুরনের যাত্রা শুরু হলো।

রবিবার (৩০ মে) মুন্নীর মুখে হাসি, হৃদয়ে উচ্ছলতা, আর সুর্যের মত আলো মুখে জল জল করে ওঠে, পিতা ও ভাইকে নিয়ে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে প্রবেশ করলে শিক্ষার্থী মুন্নী। যে আনন্দ মুন্নী নিজেই ধরে রাখতে পারছিলো না, স্বপ্ন পুরন হবে, মুন্নী চিকিৎসক হবে এ যেন এখনো স্বপ্ন। তাই বিশাদের মধ্যেও যেন হাসির ফোয়ারা, চোখে পানি আনন্দের অশ্রু হয়ে দু’চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়ে । এ যেন এক অন্যরকম দৃশ্যপট।

এ সময় এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ডাঃ নাদির হোসেন, বললেন কি হয়েছে মুন্নী, কাদছো কেন? উত্তরে জান্নাতুম মৌমিতা মুন্নী বললেন, আমার চিকিৎসক হওয়ার যে যাত্রা শুরু হলো আল্লাহপাক যেন আমাকে শক্তি, মেধা ও প্রজ্ঞা দান করেন। আমার অসহায় গরিব পিতা মাতা আমার এই স্বপ্ন কোন দিন পুরন করতে পারতো না। কিন্তু যে উদ্যোশ্য ও আদর্শ নিয়ে ইকবালুর রহিম এমপি দায়িত্ব নিয়েছেন, আমিও যেন অসহায় দরিদ্র মানুষের সেবা করে এ দায়িত্ব পালন করতে পারি। ইকবালুর রহিমেরও স্বপ্ন যেন আমিও পুরন করতে পারি।

মুন্নীর বাবা বাকী বিল্লাল এ সয় বলেন, ইকবালুর রহিম এমপির মত মানুষ এ দেশে জন্ম নেয়া প্রয়োজন। অসহায় দরিদ্র ও গরীব মানুষের পাশে না দাঁড়াতে পারলে এ দেশের মানুষ চিকিৎসা সেবা নয়, সব সেবা থেকে বঞ্চিত হবে।

উল্লেখ, পাবনা জেলার হতদরিদ্র বাকী বিলালের কন্যা জান্নাতুন মৌমিতা মুন্নী ভাল ফলাফল করেও মেডিকেল পড়ার ইচ্ছা পুরন হচ্ছিলো না। এ খবর ইকবালুর রহিম এমপির কাছে গেলে তিনি মুন্নীর চিকিৎসক হওয়ার পড়াশোনার দায়িত্ব নেন এবং মুন্নী রবিবার এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন।