শারীরিক প্রতিবন্ধীসহ ৩ কিশোরকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগে ৫ জন আটক

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর : দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ছাগল চুরির অপবাদ দিয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধীসহ তিন কিশোরকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় আটক, পাঁচ জনকে সোমবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। রবিবার রাতে ফুলবাড়ী উপজলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ওই পাঁচ জনকে আটক করা হয়।

আটক ব্যক্তিরা হলেন, উপজেলার রামভদ্রপুর গ্রামের মৃত আজিম উদ্দীনের ছেলে আফজাল হোসেন (৫৫), মহসিন আলীর ছেলে শাকিব বাবু (২৫), আব্দুল হালিমের ছেলে মমিনুল ইসলাম (২৮), মৃত ইউনুস আলীর ছেলে পলাশ হোসেন (২৮) ও জাফরপুর গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে শিপন ইসলাম (২৪)।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফখরুল ইসলাম জানান, গাছে বেঁধে শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধীসহ তিন কিশোরকে নির্যাতনের ঘটনায় রবিবার বিকালে থানায় দুটি অভিযোগ দায়ের হয়। এই ঘটনায় তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আজাদ রাতেই উপজেলার বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে এজাহার নামীয় তিন জনসহ মোট পাঁচ জনকে আটক করেন। অন্য আসামিদের আটক করতে অভিযান চলছে বলেও জানান তিনি।

উল্লখ্য, গত শনিবার দুপুরে ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রামভদ্রপুর বুদ্ধিজীবীর মোড় থেকে ছাগল চুরির অপবাদ দিয়ে উপজেলার ত্রিমোহনী স্লুইচগেট এলাকার বাসিন্দা ও শারীরিক প্রতিবন্ধী শামীম হাসান (১৬), পূর্ব জাফরপুর গ্রামের রাকিবুল ইসলাম (১৫) ও নিশাতকে (১৬) নিয়ে গাছে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় পিটিয়ে গুরুতর জখম করা হয়। চুরির স্বীকারোক্তি আদায়ে প্রকাশ্যে তিন কিশোরের পায়ে সিরিঞ্জের সুঁচ ফুটিয়ে নির্যাতন চালানো হয়। নির্যাতন শেষে তিন কিশোরকে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে গিয়ে তাদের অভিভাবকদের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়। পরে অভিভাবকরা তাদেরকে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করে। এর মধ্যে নিশাত কিছুটা সুস্থ হলে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। বাকি দু’জন এখনও হাসপাতালে ভর্তি আছে।

এ ঘটনায় রবিবার বিকালে রামভদ্রপুর উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোস্তাকিম সরকার বাবু মাস্টারসহ আট জনের বিরুদ্ধে থানায় দুটি অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগী পরিবারগুলো।