আধাঘণ্টায় সূচকে যোগ হলো ২১ পয়েন্ট

অর্থনীতি রিপোর্ট : মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের আরোপ করা কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে বেশ চাঙ্গা হয়ে উঠেছে দেশের শেয়ারবাজার। মূল্যসূচকের টানা উত্থানের সঙ্গে প্রতিদিন বাড়ছে লেনদেনের গতি।

কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে লেনদেন হওয়া আগের চার কার্যদিবসে মূল্যসূচক টানা বাড়ার পর পঞ্চম কার্যদিবস বুধবারও (২১ এপ্রিল) লেনদেনের শুরুতে শেয়ারবাজারে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। সেই সঙ্গে ভালো অবস্থানে আছে লেনদেনের গতি।

এদিন প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রায় সবকটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার মাধ্যমে লেনদেন শুরু হয়। লেনদেনের প্রথম আধাঘণ্টায় এই ধারা অব্যাহত রয়েছে।

প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন শুরু হতেই প্রধান মূল্যসূচক ১৪ পয়েন্ট বেড়ে যায়। প্রথম ৫ মিনিটের লেনদেনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান মূল্যসূচক বাড়ে ২১ পয়েন্ট।

আগের দুই কার্যদিবস লেনদেন শুরুর প্রথম কয়েক মিনিট মূল্যসূচকের ব্যাপক অস্থিরতা দেখা গেলেও আজ সেটা দেখা যায়নি। প্রথম আধাঘণ্টার লেনদেনে মূল্যসূচক একবারের জন্যও ঋণাত্মক হয়নি। বরং ধারাবাহিকভাবে সূচক বেড়েছে।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২১ পয়েন্ট বেড়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ ৬ পয়েন্ট বেড়েছে। আর ডিএসই-৩০ সূচক বেড়েছে ১৩ পয়েন্ট।

এ সময় পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ১৩২টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৮৭টির। আর ৭৪টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। লেনদেন হয়েছে ১৯৮ কোটি ৩ লাখ টাকা।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৫০ পয়েন্ট বেড়েছে। লেনদেন হয়েছে ৫ কোটি ৩২ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেয়া ৯০ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৫১টির, কমেছে ২৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৪টির।