মুখোমুখি পরিসংখ্যানে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা

মিরর স্পোর্টস : বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। আইসিসি আয়োজিত বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ এ দুই ম্যাচ। যেখানে পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে রয়েছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা।

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে এ পর্যন্ত পাঁচ ম্যাচ খেলে শূন্য পয়েন্ট বাংলাদেশের। অন্যদিকে ১০ ম্যাচে ১ জয় ও ৩ ড্রতে ১২০ পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশের ঠিক ওপরে অবস্থান করছে শ্রীলঙ্কা।

আগেই দুই ফাইনালিস্ট নির্ধারণ হয়ে যাওয়ায়, বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার মধ্যকার সিরিজের ফল কোনো প্রভাব ফেলবে না টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে। তবে দুই দলের জন্যই এটি সুযোগ টেস্ট ক্রিকেটে শক্তভাবে নিজেদের অস্তিত্বের জানান দেয়ার, নামের পাশে কিছু পয়েন্ট যোগ করার।

এক্ষেত্রে বাংলাদেশের চেয়ে অনেক এগিয়েই থাকবে শ্রীলঙ্কা। কেননা দুই দলের মুখোমুখি পরিসংখ্যানে প্রতিটি ক্ষেত্রে বড় ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে তারা। জয়, সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ, সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত সংগ্রহ, সর্বোচ্চ উইকেট, সর্বোচ্চ জুটি- সব রেকর্ডই কথা বলছে লঙ্কানদের পক্ষে।

তবে বাংলাদেশের জন্য অনুপ্রেরণা হিসেবে রয়েছে শ্রীলঙ্কার মাটিতে সবশেষ টেস্ট সিরিজটি। ২০১৭ সালের সেই সিরিজে নিজেদের শততম টেস্ট খেলতে নেমে ৪ উইকেটের জয় পেয়েছিল মুশফিকুর রহীমের দল। লঙ্কানদের বিপক্ষে টেস্টে বাংলাদেশের জয় এই একটিই।

সেই সফরের পর এবারই প্রথম আবার শ্রীলঙ্কায় গেলো বাংলাদেশ দল। ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের তুলনামূলক দুর্বল দলের কাছে হেরে যাওয়ায় এখন ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া টাইগাররা। তাই ২০১৭ সালের সিরিজের ফলের পুনরাবৃত্তি করার চেষ্টাই থাকবে মুমিনুল হকের দলের। তার আগে এক নজরে দেখে নেয়া যাক বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি পরিসংখ্যান

মোট ম্যাচ – ২০
শ্রীলঙ্কা – ১৬, বাংলাদেশ – ১ ও ড্র – ৩

সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ
বাংলাদেশ – ৬৩৮/১০ (২০১৩)
শ্রীলঙ্কা – ৭৩০/৬ (২০১৪)

সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ
বাংলাদেশ – ৬২/১০ (২০০৮)
শ্রীলঙ্কা – ২২২/১০ (২০১৮)

বড় ব্যবধানে জয়
বাংলাদেশ – ৪ উইকেটে (২০১৭)
শ্রীলঙ্কা – ১০ উইকেটে (২০০৬), ৪৬৫ রানে (২০০৯), ইনিংস ও ২৪৮ রানে (২০১৪)

সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত সংগ্রহ
বাংলাদেশ – মোহাম্মদ আশরাফুল (পাঁচ সেঞ্চুরিতে ১০৯০ রান)
শ্রীলঙ্কা – কুমার সাঙ্গাকারা (সাত সেঞ্চুরিতে ১৮১৬ রান)

সর্বোচ্চ রানের ইনিংস
বাংলাদেশ – মুশফিকুর রহীম (২০০)
শ্রীলঙ্কা – কুমার সাঙ্গাকারা (৩১৯)

সর্বোচ্চ সেঞ্চুরি
বাংলাদেশ – মোহাম্মদ আশরাফুল (৫টি)
শ্রীলঙ্কা – কুমার সাঙ্গাকারা (৭টি)

এক সিরিজে সর্বোচ্চ রান
বাংলাদেশ – মুমিনুল হক (দুই সেঞ্চুরিতে ৩১৪ রান, ২০১৮)
শ্রীলঙ্কা – কুমার সাঙ্গাকারা (দুই সেঞ্চুরিতে ৪৯৯ রান, ২০১৪)

সর্বোচ্চ উইকেট
বাংলাদেশ – সাকিব আল হাসান (১২ ইনিংসে ২৯ উইকেট)
শ্রীলঙ্কা – মুত্তিয়া মুরালিধরন (২২ ইনিংসে ৮৯ উইকেট)

ইনিংসে সেরা বোলিং
বাংলাদেশ – সাকিব আল হাসান (৭০ রানে ৫ উইকেট, ২০০৮)
শ্রীলঙ্কা – রঙ্গনা হেরাথ (৮৯ রানে ৭ উইকেট, ২০১৩)

সর্বোচ্চ পাঁচ উইকেট
বাংলাদেশ – সাকিব আল হাসান (২ বার)
শ্রীলঙ্কা – মুত্তিয়া মুরালিধরন (১১ বার)

সিরিজে সর্বোচ্চ উইকেট
বাংলাদেশ – তাইজুল ইসলাম (দুই ম্যাচে ১২ উইকেট, ২০১৮)
শ্রীলঙ্কা – মুত্তিয়া মুরালিধরন (তিন ম্যাচে ২৬ উইকেট, ২০০৭)

সর্বোচ্চ ডিসমিসাল
বাংলাদেশ – খালেদ মাসুদ পাইলট (৮ ম্যাচে ১৫ ডিসমিসাল)
শ্রীলঙ্কা – প্রসন্ন জয়াবর্ধনে (৭ ম্যাচে ২৯ ডিসমিসাল)

ম্যাচে সর্বোচ্চ ডিসমিসাল
বাংলাদেশ – মুশফিকুর রহীম (৫ ক্যাচ, ২০১৩)
শ্রীলঙ্কা – প্রসন্ন জয়াবর্ধনে (৫ ক্যাচ, ২ স্ট্যাম্পিং, ২০০৯)

সিরিজে সর্বোচ্চ ডিসমিসাল
বাংলাদেশ – লিটন দাস (দুই ম্যাচে ৭ ডিসমিসাল, ২০১৮)
শ্রীলঙ্কা – প্রসন্ন জয়াবর্ধনে (দুই ম্যাচে ১১ ডিসমিসাল, ২০০৯)

সর্বোচ্চ ক্যাচ
বাংলাদেশ – শাহরিয়ার নাফীস (সাত ম্যাচে ৮ ক্যাচ)
শ্রীলঙ্কা – মাহেলা জয়াবর্ধনে (তেরো ম্যাচে ১৭ ক্যাচ)

সর্বোচ্চ রানের জুটি
বাংলাদেশ – মুশফিকুর রহীম ও মোহাম্মদ আশরাফুল (পঞ্চম উইকেটে ২৬৭)
শ্রীলঙ্কা – কুমার সাঙ্গাকারা ও মাহেলা জয়াবর্ধনে (তৃতীয় উইকেটে ৩১১)