৬ কোটি ডলারে বিক্রি হলো ‘মানবতার যাত্রা’

মিরর ডেস্ক :  গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের স্বীকৃতি পাওয়া ক্যানভাসে আঁকা ছবিটি খণ্ড আকারে বিক্রির কথা ছিল। তবে দুবাইয়ে থাকা ফ্রান্সের নাগরিক আন্দ্রে আবদুন সোমবার ছবির ৭০টি অংশের সবগুলোই কিনে নেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে বিক্রি হয়েছে ক্যানভাসে আঁকা বিশ্বের বৃহত্তম চিত্রকর্মটি।

ব্রিটিশ শিল্পী সাচা জাফরির এই শিল্পকর্ম ৬ কোটি ২০ লাখ ডলারে নিলামে বিক্রি হয় বলে মঙ্গলবার জানিয়েছেন আয়োজকরা।

দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে জানানো হয়, দ্য জার্নি অফ হিউম্যানিটি (মানবতার যাত্রা) নামের চিত্রকর্মের ৭০টি খণ্ড। এটি ১৭ হাজার ১৭৬ বর্গফুট লম্বা, যা প্রায় চারটি বাস্কেটবল কোর্টের সমান।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়, লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে দ্বিগুণ দামে চিত্রকর্মটি বিক্রি হয়। এ অর্থ পাঠানো হবে শিশুদের নিয়ে কাজ করা দাতব্য সংস্থাগুলোতে।

দুবাইয়ে থাকা ফ্রান্সের নাগরিক আন্দ্রে আবদুন সোমবার ছবির ৭০টি অংশের সবগুলোই কিনে নেন। গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের স্বীকৃতি পাওয়া ক্যানভাসে আঁকা ছবিটি খণ্ড আকারে বিক্রির কথা ছিল।

এটি রাখা হয়েছিল ‘আটলান্টিস : দ্য পাম’ নামের হোটেলে।

গোটা ছবি কেনার বিষয়ে ক্রিপ্টোকারেন্সিবিষয়ক একটি প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার আবদুন বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘গরিব পরিবারে বেড়ে ওঠায় আমি জানি খাবারের অভাব কী জিনিস। তবে আমি অন্তত মা-বাবার ভালোবাসা, স্কুলে যাওয়ার সুযোগ ও পারিবারিক সমর্থন পেয়েছিলাম।’

পুঁজিবাজারের সাবেক এই বিনিয়োগকারী বলেন, ‘দেখেই আমার কাছে চিত্রকর্মটিকে খুবই প্রভাবশালী মনে হয়েছে এবং আমার মনে হয়েছে, এর খণ্ডিত অংশ নেয়াটা ভুল হবে।’ ছবিটি কেনায় শিশুদের ওপর করোনাভাইরাস মহামারির বৈশ্বিক প্রভাবও মাথায় ছিল বলে জানান আবদুন।

শিল্পীর লক্ষ্য কী

বিশ্বের সুবিধাবঞ্চিত অঞ্চলগুলোতে শিশুদের স্বাস্থ্য, স্যানিটেশন ও শিক্ষা কর্মসূচিগুলোর জন্য তিন কোটি ডলার তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্যে মাঠে নেমেছিলেন জাফরি। তবে তিনি এরই মধ্যে সংগ্রহ করে ফেলেছেন দ্বিগুণের বেশি অর্থ।

সমসাময়িক বিষয় নিয়ে কাজ করা ৪৪ বছর বয়সী এই শিল্পীর আশা, তার চিত্রকর্মে সূচনা হবে মানবতাবাদী আন্দোলনের।

জাফরির সৃষ্টিশীল কাজে যুক্ত হতে ১৪০টি দেশের শিশুরা অনলাইনে তাদের শিল্পকর্ম সাবমিট করে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে শেষ হয় এই প্রক্রিয়া।