জন্মদিনে শুভেচ্ছায় সিক্ত সাকিব

মিরর স্পোর্টস : বিতর্ক আর সাকিব আল হাসান যেন একে অপরের পরিপূরক! পুরো ক্যারিয়ার জুড়ে নানা বিতর্কে জড়িয়েছেন। সম্প্রতি তেমনই এক পরিস্থিতিতে পড়েছেন বিসিবি নিয়ে মন্তব্য করে। অবশ্য এটাও ভুলে যাওয়া যাবে না যে, তারকাদের জীবনে ‘বিতর্ক’ সব সময়ই একটা অনুষঙ্গ! সেই সাকিব আল হাসানেরই আজ ২৪ মার্চ ৩৩তম জন্মদিন।

তাই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের জন্মদিনে ভক্ত, সতীর্থ থেকে শুরু করে সর্বসস্তরের মানুষ শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। আইপিএলে সাকিবের দল কলকাতা রাইডার্সও বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডারের জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছে। নিজেদের ফেসবুক পেজে সাকিবকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে কেকেআর লিখেছে, ‘আমাদের প্রিয় সাকিব আল হাসানকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। শুভ জন্মদিন। আপনি সব সময় আমাদের কাছে সুপারস্টার হিসেবে থাকবেন।’

ক্রিকইনফো আবার কিছু পরিসংখ্যান দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে সাকিবকে, ‘সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের তৃতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১০ হাজার প্লাস রান এবং ৫০০ প্লাস উইকেট শিকারি তিনজন খেলোয়াড়ের একজন। একজন অলরাউন্ডার সুপারস্টার, বাংলাদেশের সাকিব আল হাসানকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।’
জন্মদিনে সতীর্থরাও সাকিবকে অভিনন্দন বার্তা জানাতে ভোলেননি। ইমরুল কায়েস নিজের ফেসবুকে লিখেছেন, ‘একজন সেরা ক্রিকেটার, সতীর্থ, বন্ধু এবং বাংলাদেশ ক্রিকেটের আদর্শ সাকিব আল হাসান। জন্মদিনের শুভেচ্ছা।’

অফিস্পিনার নাঈম হাসান লিখেছেন, ‘শুভ জন্মদিন সাকিব ভাই। আপনার সমৃদ্ধ জীবন কামনা করছি এবং আপনার সাথে আরও ম্যাচ খেলার আশা করছি।’

আরেক তরুণ অলরাউন্ডার আফিফ হোসেনও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাকিবকে, ‘শুভ জন্মদিন ভাই।’ অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ শুভেচ্ছা জানিয়ে লিখেছেন, ‘যে মানুষটি লক্ষ লক্ষ স্বপ্নকে অনুপ্রাণিত করেছিল তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা। শুভকামনা, সাকিব ভাই।’

নারী দলের পেসার জাহানারা আলম জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে লিখেছেন, ‘আমাদের কিংবদন্তি সাকিব আল হাসান ভাইকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা। আল্লাহ আপনাকে সুস্বাস্থ্য এবং আরও অনেক সাফল্য দান করুন।’

যুব বিশ্বকাপজীয় দলের পেসার শরিফুল ইসলামও সাকিবের জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এভাবে, ‘শুভ জন্মদিন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। সাকিব ভাই।’ পেসার রুবেল হোসেন লিখেছেন, ‘শুভ জন্মদিন। বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা ক্রিকেটার, লিজেন্ড সাকিব আল হাসান। ভাই আপনার জন্য অনেক শুভকামনা ও দোয়া রইল।’

প্রসঙ্গত, ২০০৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে একদিনের ক্রিকেটে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের জার্সি গায়ে মাঠে নামেন সাকিব আল হাসান। তখন হয়তো কেউই ভাবেইনি সেই সাকিব একদিন বিশ্বজয় করবেন। সেই থেকে শুরু। সাকিব ছুটেছেন নিজস্ব গতিতে। তার নেতৃত্বে দেশের বাইরে প্রথম টেস্ট সিরিজ জেতে টাইগাররা। দেশের মাটিতে বিশ্বকাপও খেলে বাংলাদেশ। ওয়ানডে, টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি– তিন ফরম্যাটেই বিশ্বসেরা ক্রিকেটার হন বাংলাদেশের পোস্টার বয়।

সারা বিশ্বের প্রায় সব ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ খেলা একমাত্র বাংলাদেশি তিনি। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পাশাপাশি ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল), পাকিস্তান সুপার লিগ (পিএসএল), ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল), কাউন্টি ক্রিকেট, বিগ ব্যাশ টি-টোয়েন্টি- যেখানেই খেলেছেন বাংলাদেশকে পরিচিত করেছেন নতুনভাবে।