করোনায় হাজারের বেশি আক্রান্ত, মৃত্যু বেড়ে দ্বিগুণ

মিরর ডেস্ক : দেশে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৮ হাজার ৫১৫ জনে দাড়িয়েছে। এছাড়া, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ৬৬ জন যা গতকালের চেয়ে বেশি। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখ ৫৫ হাজার ২২২ জন। এই পর্যন্ত আক্রান্তের পরে সুস্থ হয়েছেন ৫ লাখ ৯ হাজার ১৭২ জন।

শুক্রবার (১২ মার্চ) বিকালে সংবাদমাধ্যমে পাঠানো স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা বিষয়ক বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গত একদিনে ১৬ হাজার ১১১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ১ হাজার ৬৬ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়। টানা ছয় দিন হাজারের নিচে থাকার পর গত ৭ জানুয়ারি সবশেষ শনাক্ত হাজার ছাড়ায় (১ হাজার ৭ জন)। এরপর দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা কমতে থাকে। ৯ জানুয়ারি সাতশোর ঘরে (৬৯২) নামে। সর্বশেষ ২৫ জানুয়ারি ৬০২ জন শনাক্তের তথ্য জানানো হয়। এরপর পাঁচ সপ্তাহ ধরে দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছয়শোর নিচে ছিল। এমনকি ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে তিনশোর নিচেও নেমেছিল দৈনিক শনাক্ত। এরপর গত ৩ মার্চ থেকে শনাক্তের সংখ্যা টানা তিনদিন (৬১৪, ৬১৯, ৬৩৫) ছয়শোর বেশি হয়। দুই মাস পর গত বুধবার শনাক্ত হাজার ছাড়ায়। গতকাল আক্রান্তের সংখ্যাটি ছিল হাজারের ওপরে। আজ টানা তৃতীয় দিনের মতো করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা হাজার পেরোলো।

গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দৈনিক শনাক্তের হারও বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ৬.৬২ শতাংশ, যা গতকাল ছিল ৫.৯২।

চলতি বছরের জানুয়ারির ১২ তারিখ শনাক্তের হার ৫ শতাংশে নামে, যা তার আগের ৯ মাসের মধ্যে সবচেয়ে কম। আর ১৪ জানুয়ারি আরও কমে হয় ৪.৯০ শতাংশ। জানুয়ারির শেষ দুই সপ্তাহে শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকে। এরপর গত ৩ ফেব্রুয়ারি তার আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হন ৪৩৮ জন। এতে পরীক্ষার বিপরীতে একদিনে শনাক্তের হার কমে তিন শতাংশের (২.৯২) নিচে নামে, যা ২০১৯ সালের এপ্রিলের পর সবচেয়ে কম ছিল।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১৩জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু ৮ হাজার ৫১৫ জনে। নতুন মারা যাওয়া ১৩ জনের মধ্যে ১২ জনই পুরুষ। আর একজন নারী। তাদের মধ্যে ৩০ বছরের বেশি বয়সী একজন, চল্লিশোর্ধ্ব তিনজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব দুইজন এবং ষাটোর্ধ্ব সাতজন।

এছাড়া উল্লেখিত সময়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ২৫২ জন। এ নিয়ে ৫ লাখ ৯ হাজার ১৭২ জন সুস্থ হয়েছেন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থতার হার ৯১.৭১ শতাংশ, মৃত্যুর হার ১.৫৩ শতাংশ ও শনাক্তের হার ১৩.১২ শতাংশ।

এর আগে, বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত বছরের ৮ মার্চ; তা সোয়া ৫ লাখ পেরিয়ে যায় চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি। এর মধ্যে গতবছরের ২ জুলাই ৪ হাজার ১৯ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়, যা এক দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। আর চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হাজারের নিচে রয়েছে।

প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গতবছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সেবছরের ২৯ ডিসেম্বর তা সাড়ে সাত হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে গত বছরের ৩০ জুন এক দিনেই ৬৪ জনের মৃত্যুর খবর জানানো হয়, যা ছিল এক দিনের সর্বোচ্চ মৃত্যু।