‘কোর্টের বারান্দায় পর্যন্ত মাদক পাওয়া যায়’

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর : মাদকসেবী অথবা মাদক কারবারির পক্ষে কোনো আইনজীবী দাঁড়াবেন না উল্লেখ করে সংরক্ষিত মহিলা সাংসদ অ্যাডভোকেট জাকিয়া তাবাসসুম জুঁই বলেছেন, মাদকের ভয়াবহতা এমন পর্যায়ে পৌঁছে গেছে যে কোর্টের বারেন্দায় পর্যন্ত মাদক পাওয়া যায়। জামিন হলেই টাকা পাবো- আইনজীবীদের এ অবস্থান থেকে সরে আসতে হবে।

শনিবার বিকালে দিনাজপুর আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গণে আয়োজিত ‘মাদকমুক্ত সমাজ গঠন: বিচারক ও আইনজীবীদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

দিনাজপুর আইনজীবী সমিতির সকল সদস্যের অনুরোধ জানিয়ে অ্যাডভোকেট জুঁই বলেন, মাদকের ভয়াবহতা সম্পর্কে নতুন করে বলবার বা বুঝাবার কিছু নেই। মাদক গ্রহণ করে একজন মাদকসেবী মানুষ থেকে পশুতে রূপান্তরিক হয়। তার মধ্যে মনুষ্যত্বের কোনো জ্ঞান-বিবেক কিছুই থাকে না। এমতাবস্থায় এমন কোনো কাজ নেই বা এমন কোনো অন্যায় নেই যা তার দ্বারা করা সম্ভব নয়। তাই আমাদের সকলের উচিৎ অন্তত কোর্ট অঙ্গণকে মাদকমুক্ত করার ব্যাপারে সকলকে অঙ্গীকারাবদ্ধ হতে হবে।

তিনি বলেন, সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ব্যাপার হচ্ছে দিনাজপুরের মোট মামলার শতকরা ৭৫ ভাগই মাদকের মামলা। এখানে চুরি, ডাকাতি ও ছিনতাই কম হলেও মাদক সব কিছুকে ছাপিয়ে চলে গেছে। এক্ষেত্রে রাষ্ট্রের দায়িত্ব দুষ্টের দমন শিষ্টের পালন। আমাদের সবাইকে মিলে রাষ্ট্রের এ দায়িত্ব পালনে সহযোগিতা করতে হবে।

দিনাজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাড. মো. মাজহারুল ইসলাম সরকারের সভাপতিত্বে এবং ‘আমরা কজন আইনজীবী সঞ্চয় সমিতি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও দিনাজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. হাজী মো. সাইফুল ইসলামের সঞ্চালনায় মুখ্য আলোচক ও বিশেষ অতিথি ছিলেন দিনাজপুরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আব্দুল আজিজ ভূঞা।

আরও বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (২) মোঃ আনোয়ারুল হক, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আয়েজ উদ্দীন, দিনাজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল লতিফ মিয়া, অ্যাডভোকেট আব্দুল হালিম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. হামিদুল ইসলাম, জিপি অ্যাড. নুরুল ইসলাম (৩), পিপি অ্যাড. রবিউল ইসলাম রবি, স্পেশাল পিপি (নাঃ শিঃ) অ্যাড. তৈয়বা বেগম, স্পেশাল পিপি অ্যাড. শামসুর রহমান পারভেজ প্রমুখ।