বিদায় ২০২০

ইংরেজী খ্রিস্টাব্দ নতুন বর্ষের হাতছানি বাঙালীর ঘরে ঘরে। আগামীকাল নতুন বর্ষ ২০২১-কে বরণ করতে প্রস্তুত সবাই। আজ ২০২০ সালের শেষ দিন। প্রতিবারের মতো এবারও ঢাকাসহ সারাদেশে খ্রিস্টীয় বছর শেষের রাতকে উপভোগ করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। হোটেল, রেস্তরাঁ এবং ক্লাবগুলোতে এ উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। তারকাখচিত হোটেলগুলোর পাশাপাশি ছোট পরিসরেও আয়োজন করা হয়েছে থার্টিফার্স্ট নাইট উদযাপনের। হোটেল, রেস্তরাঁয় রকমারি খাবার-দাবারেরও আয়োজন রয়েছে। এবারও বর্ষ বিদায়ের রাতটিকে উদ্যাপন করতে নগরজুড়ে নেয়া হয়েছে নানা প্রস্তুতি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও বিশেষ নজরদারির ব্যবস্থা করেছে। নতুন বর্ষ উদ্যাপনে আরোপ করা হয়েছে কিছু শর্ত। নিরাপত্তায় মাঠে রয়েছে পুলিশ-র‌্যাবের সর্বক্ষণিক টহল। পাশাপাশি রয়েছে নিয়মিত বাহিনীও। তবে করোনা মহামারীতে সবকিছুই হবে সীমিত পরিসরে, প্রায় অনাড়ম্বর আয়োজনে স্বাস্থ্যবিধিসহ সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করে।

বিগত বছরগুলোর মতো ২০২০ সালেও ধারাবাহিকভাবে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা, সহিংসতা, নৃশংসতা, নির্মমতা ও রক্তাক্ত ঘটনা প্রত্যক্ষ করতে হয়েছে দেশবাসী ও বিশ্ববাসীকে। নানা ঘটন-অঘটন, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, চড়াই-উতরাই, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ও আনন্দ-বেদনার সাক্ষী হয়ে কালের গর্ভে সময়ের স্রোতে হারিয়ে গেল ২০২০। আজ খ্রিস্টীয় বছরটির শেষ দিন। আন্তর্জাতিক ও দেশীয় প্রেক্ষাপটে নানা কারণেই স্মরণীয় হয়ে থাকবে বছরটি। বিদায়ী ২০২০ সাল সরকারের ধারাবাহিক তৃতীয় মেয়াদের দ্বাদশ বর্ষ পূর্তির বছর। এবার রাজনীতির মাঠ তেমন উত্তপ্ত না হলেও পৌর নির্বাচন কেন্দ্রিক উত্তেজনা বাড়ছে ক্রমশ। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকায় দেশ এগিয়েছে অনেক। মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত করা, স্বাস্থ্য, দারিদ্র্য হ্রাসসহ নানা ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার বহু দেশের শীর্ষে অবস্থান, মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সাফল্য বিশ্ববাসীকে বিস্মিত করেছে।

রাত পোহালেই খ্রিস্টীয় নববর্ষ ২০২১ সালের হবে নতুন সূর্যোদয়। নববর্ষের এই সূচনালগ্নে প্রত্যাশা, জাতীয় জীবনের সর্বক্ষেত্রে আত্মপ্রবঞ্চনা, অগণতান্ত্রিক ও পশ্চাৎমুখী প্রবণতার অবসান ঘটবে। সরকার জঙ্গী, মাদক ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূল এবং যুদ্ধাপরাধীমুক্ত উন্নয়নশীল স্বদেশ গড়ে তুলবে। একই সঙ্গে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী সকল অপতৎপরতা বন্ধ হবে। নিকট অতীতের অগ্নি সন্ত্রাসের দিন যেন আর ফিরে না আসে। শক্ত হাতে প্রতিরোধ সবাইকে গড়ে তুলতে হবে। দেশ সেবায় আত্মনিয়োগের মধ্য দিয়েই দেশকে এগিয়ে নিতে হবে সবাই মিলে।

সংক্ষিপ্ত মূল্যায়নে বলা যায়, ২০২০ সাল বিশ্বব্যাপী ছিল মূলত করোনা মহামারীর বছর। এই অতিমারী বিশ্বের অগণিত মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। সংক্রমিত করেছে অসংখ্য মানুষকে, যা চলমান। আশার কথা এই যে, বছর শেষে কোভিড-১৯-এর টিকা আবিষ্কার এবং এর প্রয়োগও শুরু হয়েছে। বাংলাদেশেও আসবে অচিরেই। ২০২১ সালে এর প্রশমন ঘটবে, এমনটাই প্রত্যাশা।