গেমিং পারফরমেন্সে বাজার মাতাতে এলো রিয়েলমি নারজো ২০

মিরর ডেস্ক : স্মার্ট ডিভাইসের এই যুগে স্মার্টফোন গেমিংও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এবং গেমিং প্রতিষ্ঠানগুলো স্মার্টফোনে খেলার উপযোগী গেম বানাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় তরুণদের পছন্দের স্মার্টফোন ব্র্যান্ড রিয়েলমি নারজো সিরিজের গেমিং স্মার্টফোন তৈরি শুরু করেছে এবং সম্প্রতি বাংলাদেশের বাজারে এনেছে রিয়েলমি নারজো ২০।

রিয়েলমি নারজো ২০-এ রয়েছে মিডিয়াটেকের হেলিও জি৮৫ পাওয়ারফুল গেমিং প্রসেসর, আনতুতু বেঞ্চমার্কের গেমিং স্কোর দুই লাখেরও বেশি! সাথে রয়েছে ৪৮-মেগাপিক্সেল এআই ট্রিপল ক্যামেরা এবং ছয় হাজার মিলি অ্যাম্পিয়ারের দুর্দান্ত ব্যাটারি আর ১৮ ওয়াটের টাইপ সি কুইক চার্জার।

এ স্মার্টফোনটিতে আর কী কী ফিচার রয়েছে তা জেনে নেয়া যাক।

স্মুথ গেমিংয়ের সকল সুবিধা

রিয়েলমি নারজো ২০ তরুণ প্রজন্মের জন্য একটি নিখুঁত গেমিং ডিভাইস, যার শক্তিশালী হেলিও জি৮৫ প্রসেসর নিশ্চিত করে স্মুথ গেমিং। এই অক্টাকোর সিপিইউ ২.০ গিগাহার্জ পর্যন্ত গতিতে যেকোনো কাজ সম্পন্ন করতে সক্ষম। ভিন্নধর্মী গেমিং অভিজ্ঞতা প্রদানের জন্য এর সাথে রয়েছে শক্তিশালী এআরএম মালি-জি৫২ জিপিইউ। জি৮৫-এ আছে হাইপারইঞ্জিন গেমিং টেকনোলজির সাথে ৪জিবি র্যাম, যা মোবাইল গেমারদের জন্য দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করে। হেলিও জি৮৫ গেমারদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে, যা চমৎকার গেমিং অভিজ্ঞতার জন্য পর্যাপ্ত শক্তি প্রদান করে এবং আনতুতু বেঞ্চমার্কে এর গেমিং স্কোর ২০০,০০০+ এরও বেশি।

দীর্ঘক্ষণ গেম খেলার পরও উন্নততর হার্ডওয়্যার-সফটওয়্যার অপটিমাইজেশন এই ফোনের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে। একই সাথে গ্রাফিক্সে ট্রানজিশনও অনেক বেশি স্মুথ ও ফার্স্ট পারসন শুটিং (এফপিএস) গেমের ক্ষেত্রে ফ্রেম রেট স্থির থাকে যা গেমারদের নিরবচ্ছিন্ন গেমিং সেশন নিশ্চিত করে। ‘আল্ট্রা’ ফ্রেম রেট নির্বাচন করেও পাবজি, কল অব ডিউটির মতো এফপিএস গেম স্মুথভাবে চলে। অ্যাসফল্টের মতো রেসিং গেমগুলো রিয়েলমি নারজো ২০-এ চলে অনায়াসে।

এছাড়াও মিডিয়াটেকের হাইপার ইঞ্জিন গেমিং টেকনোলজি সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য নেটওয়ার্ক সংযোগ এবং ছবির উন্নতমান নিশ্চিত করার পাশাপাশি ইন্টেলিজেন্ট রিসোর্স ম্যানেজমেন্টের মাধ্যমে টেকসই কার্যক্ষমতা এবং দীর্ঘ সময় গেমপ্লে নিশ্চিত করে।

ট্রেন্ডসেটিং ব্যাটারি স্মার্টফোনের অবিরাম ব্যবহার

রিয়েলমি নারজো ২০ ফোনটিতে ছয় হাজার মিলি অ্যাম্পিয়ারের মেগা ব্যাটারির সাথে আছে টাইপ সি১৮ ওয়াট কুইক চার্জ সুবিধা। একবার সম্পূর্ণ চার্জে টানা ১১ ঘণ্টা অনায়াসে গেম খেলা যাবে। এছাড়াও রয়েছে বিরামহীন ২৫ ঘণ্টা অনলাইন ভিডিও স্ট্রিমিং বা ১১৭ ঘণ্টা অনলাইন অডিও প্লেব্যাক কিংবা একটানা ৪৩ ঘণ্টা কলটাইমের সুবিধা। সম্পূর্ণ ব্যাটারি দেবে ৪৫ দিনের স্ট্যান্ডবাই। ফোনের সাথে আসা ৯ ভোল্ট/২ অ্যাম্পিয়ার চার্জার দিয়ে ৩০ মিনিটে ২৯ শতাংশ পর্যন্ত চার্জ দেয়া যাবে। তাছাড়া রিভার্স চার্জিং ক্ষমতাসম্পন্ন রিয়েলমি নারজো ২০ দিয়ে এআইওটি ডিভাইসগুলোকেও খুব সহজে চার্জ করা যাবে।

ফোনটিতে আছে ‘অ্যাপ কুইক ফ্রিজার,’ যা একটি নির্দিষ্ট সময় পর অব্যবহৃত অ্যাপগুলো বন্ধ করে ব্যাটারির সাপোর্ট বাড়াতে সাহায্য করবে। দুর্দান্ত ব্যাটারি ব্যাকআপ দেয়ার জন্য ফোনটিতে আছে অত্যাধুনিক স্ক্রিন ব্যাটারি অপটিমাইজেশন এবং এআই পাওয়ার সেভিং।

অসাধারণ ভিউইংয়ের জন্য বিশালের ডিসপ্লে

অনায়াসে গেম খেলার জন্য বড় স্ক্রিন অত্যাবশ্যক। রিয়েলমি নারজো ২০-এ আছে ৬.৫-ইঞ্চির বিশাল এইচডি+মিনি-ড্রপ স্ক্রিন। এর স্ক্রিন-টু-বডি রেশিও ৮৮.৭ শতাংশ যা ব্যবহারকারীদের দেবে চমৎকার ভিউইং অভিজ্ঞতা। ডিসপ্লেটির রিফ্রেশ রেট ৬০ হার্জ এবং স্যামপ্লিং রেট ১২০ হার্জ, যা গেমিং প্রসেসরের সাথে গেমিংয়ে দেবে অসাধারণ অভিজ্ঞতা। ইউআইয়ের আরও উন্নত অপটিমাইজেশন, টাচ রেসপন্স ডিলে প্রায় ৩৫ শতাংশ হ্রাস করেছে এবং ফোনের সামগ্রিক কার্যক্ষমতা ২০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছে, তাই গেমিংয়ের সময় আরও বেশি স্মুথ এক্সপেরিয়েন্স পাওয়া যাবে।

স্মার্টফোন ফটোগ্রাফির জন্য চমৎকার ক্যামেরা সেটআপ

ডিভাইসটিতে রয়েছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের এআই ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা। ৪৮ মেগাপিক্সেল লেন্সের মূল ক্যামেরায় আছে এফ/১.৮ এর বড় অ্যাপারচার, যা অল্প আলোতেও ঝকঝকে ছবি তুলতে সক্ষম। আট মেগাপিক্সেলের ১১৯-ডিগ্রি আল্ট্রা-ওয়াইড ক্যামেরায় বিশাল পয়েন্ট অব ভিউ পাওয়া যায়। এছাড়াও আল্ট্রা-ম্যাক্রো লেন্সে যেকোনো অবজেক্টের আরও কাছাকাছি গিয়ে মাইক্রো ওয়ার্ল্ডের সৌন্দর্য নতুন উপায়ে আবিষ্কার করা যায়।

আট মেগাপিক্সেলের ওয়াইড সেলফি ক্যামেরায় এআই বিউটিফিকেশন ফাংশন, এইচডিআর মোড, পোর্ট্রেট মোড এবং প্যানোসেলফির মতো ফিচারের ক্রিস্টাল ক্লিয়ার সেলফি তোলা যায়। ক্যামেরাটি ৩০ এফপিএসে ১০৮০ পিক্সেলের ভিডিও রেকর্ডের পাশাপাশি আছে এইচডিআর, টাইম-ল্যাপস এবং প্যানোরামা মোড।নান্দনিক ভিক্টরি ডিজাইনের সাথে অভিনব রিয়েলমি ইউআই

রিয়েলমি নারজো ২০-তে স্পেশাল ভিক্টরি বা ভি ডিজাইন করা হয়েছে। ফোনের ব্যাক প্যানেলটি বিশেষ টেক্সচারে তৈরি যা একটি দৃষ্টিনন্দন ভিজ্যুয়াল ইফেক্টের কারণে চমৎকার দেখায়। তাছাড়া এই টেক্সচারের কারণে স্মার্টফোন গেমাররা আরও উন্নততর গ্রিপ পাবেন, ফলে দীর্ঘক্ষণ গেমিং সেশনেও হাত থেকে পিছলে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই।

তরুণ প্রজন্মের লাইফস্টাইলের সাথে সামঞ্জস্য রেখে রিয়েলমি নারজো ২০- সিলভার সোর্ড এবং ব্লু ব্লেডে দুটি আকর্ষণীয় রঙে পাওয়া যাচ্ছে। ফোনটিতে অ্যান্ড্রয়েড ১০ এর ওপর ভিত্তি করে তৈরি অত্যাধুনিক রিয়েলমি ইউআই ২.০ এর ব্যবহার হয়েছে। এই ইউআইয়ে আছে ডুয়াল মোড মিউজিকের মতো অভিনব ফিচার যা একই মিউজিক একাধিক ডিভাইসে শুনতে সাহায্য করে। ৩-ফিঙ্গার সিলেক্টেড স্ক্রিনশট, অসাধারণ ডার্ক মোড, এআই ওয়ালপেপার, স্মার্ট প্রোটেকশনে স্মার্টফোনের ব্যবহার আরও সহজ হবে।

রিয়েলমি নারজো ২০-এর ৪/৬৪ জিবি সংস্করণটি মাত্র ১৩ হাজার ৯৯০ টাকায় বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। নিকটস্থ রিয়েলমি ব্র্যান্ডশপ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন এই ওয়েবসাইটে (https://realmebd.com/brandshop/)।