ইউএনওর ওপর হামলা : চার্জ গঠন ১৭ জানুয়ারি

ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার সাবেক নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ও তার বাবার ওপর হামলার ঘটনায় মামলার চার্জ গঠন শুনানির জন্য আগামী ১৭ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) আসামির উপস্থিতিতে দিনাজপুরের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক বিশ্বনাথ মন্ডল এ আদেশ দেন।

এর আগে গত ১৭ ডিসেম্বর এই আদালতের বিচারক ২৯ ডিসেম্বর চার্জ গঠনের দিন ধার্য করেছিলেন।

দিনাজপুর আদালত পুলিশ পরিদর্শক ইসরাইল হোসেন বলেন, মঙ্গলবার সকালে আসামি রবিউল ইসলামকে দিনাজপুরের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। পরে আদালতের বিচারক আগামী ১৭ জানুয়ারি মামলার চার্জ গঠনের জন্য দিন ধার্য করেন। আসামিকে পুনরায় জেল হাজতে পাঠানো হয়।

তিনি আরও বলেন, ইউএনও ওয়াহিদা খানম ও তার বাবার ওপর হামলার ঘটনায় একমাত্র আসামি রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে গত ২১ নভেম্বর দিনাজপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (আমলি আদালত-৭) এই অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দিনাজপুর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) ওসি ইমাম আবু জাফর।

তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির ওসি ইমাম আবু জাফর জানান, এই মামলার সবদিক বিবেচনা করে এবং নিশ্চিত হওয়া গেছে যে ঘটনার একমাত্র পরিকল্পনাকারী এবং হামলাকারী আসামি রবিউল ইসলাম। এ জন্য তার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। অন্য যাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছিল হামলার ঘটনার সঙ্গে তাদের কোনো সম্পৃক্ততা না থাকায় মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করা হয়েছে।

পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, অভিযোগপত্রে এই মামলায় সিসি ফুটেজ পর্যালোচনা, মোবাইল নেটওয়ার্ক, আলামত হিসেবে ব্যবহৃত লাঠি, হাতুড়ি, ফরেনসিক রিপোর্ট, এমই রিপোর্ট, নোকিয়া ফোন, নগদ ৪৫ হাজার টাকাসহ ৩১টি আলামত থাকার কথা বলা হয়েছে। এছাড়া অভিযোগপত্রে ৫৩ জনকে সাক্ষী হিসেবে রাখা হয়েছে যাদের মধ্যে পাঁচজন এরইমধ্যে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। এই মামলায় প্রায় পৌনে তিন মাসে ৪০ জনেরও বেশি জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২ সেপ্টেম্বর দিনগত রাত ২টার দিকে সরকারি ডাকবাংলাতে ঘোড়াঘাট ইউএনওর ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলী শেখের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ১১ সেপ্টেম্বর রাতে জেলার বিরল উপজেলার বিজোড়া ইউনিয়নের বিজোড়া গ্রামের খতিব উদ্দীনের ছেলে ও ঘোড়াঘাটের ইউএনও বাসভবনের সাবেক কর্মচারী রবিউল ইসলামকে আটক করা হয়।

২০ সেপ্টেম্বর নিজের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন রবিউল ইসলাম।