দিনাজপুরসহ ২৪ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শুরু

মিরর ডেস্ক : প্রথম ধাপে দিনাজপুরসহ সারাদেশের ২৪ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। আজ সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে এ ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

প্রথমবারের মতো ইভিএমে ভোটগ্রহণ হচ্ছে সারাদেশের সাথে ফুলবাড়ী পৌরসভায় । ভোটগ্রহণের সব প্রস্তুতি আগেই সম্পূর্ণ হয়েছে। নির্বাচনে এ উপজেলার ১০ ভোটকেন্দ্রের মধ্যে আটটিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এর মধ্যে অতি ঝুঁকিপূর্ণ পাঁচটি।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও দিনাজপুর সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শাহিনুর ইসলাম বলেন, ফুলবাড়ী পৌর নির্বাচনে ২৭ হাজার ৯৩১ ভোটারের জন্য ১০টি ভোটকেন্দ্রে ৯৪টি ভোট কক্ষ স্থাপন করা হয়েছে। ভোট গ্রহণের জন্য ১০ প্রিসাইডিং অফিসার, ৯৪ সহকারী প্রিসাইডিং এবং ১৮৮ পোলিং অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে।

ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্তকর্তা রিয়াজ উদ্দিন বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ১০ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, ১০০ পুলিশ ও ৯০ আনসার সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া অতিরিক্ত ফোর্স হিসেবে র‌্যাব ও বিজিবি নিয়োগ করা হয়েছে।

পৌর নির্বাচনে এবারই প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে কয়েকটি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। পৌরসভাগুলোতে মোট ১ হাজার ১৬০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

বর্তমানে দেশে ৩২৯টি পৌরসভা রয়েছে। এর মধ্যে আজ ২৮ ডিসেম্বর, পঞ্চগড় পৌরসভা, ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ, দিনাজপুরের ফুলবাড়ী, রংপুরের বদরগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, রাজশাহীর পুঠিয়া ও কাটাখালী, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর, পাবনার চাটমোহর, কুষ্টিয়ার খোকসা, চুয়াডাঙ্গা, খুলনার চালনা, বরগুনার বেতাগী, পটুয়াখালীর কুয়াকাটা, বরিশালের উজিরপুর ও বাকেরগঞ্জ, ময়মনসিংহের গফরগাঁও, নেত্রকোনার মদন, মানিকগঞ্জ, ঢাকার ধামরাই, সুনামগঞ্জের দিরাই, মৌলভীবাজারের বড়লেখা, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ এবং চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

২৪ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি (জাপা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ মেয়র পদে ৯৩, সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে ২৬৫ ও সাধারণ ওয়ার্ড কমিশনার পদে ৮০১ জনসহ তিন পদে মোট ১ হাজার ১৬০জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আইন অনুযায়ী পৌরসভায় নির্বাচিত মেয়র-কাউন্সিলরদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ৯০ দিনের মধ্যে ভোটগ্রহণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এক্ষেত্রে আগামী ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি প্রায় ২৫০টিরও বেশি পৌরসভার মেয়র-কাউন্সিলরদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর একযোগে ২৩৪টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।