যুক্তরাজ্য বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন

মিরর ডেস্ক : যুক্তরাজ্যের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন শনাক্তের পর দেশটির সঙ্গে সীমান্ত ও ফ্লাইট বন্ধ করে দিয়েছে ফ্রান্সসহ অন্তত ৩০টি দেশ। ফলে কার্যত বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে যুক্তরাজ্য। ভাইরাসের নতুন ধরন নিয়ে করণীয় ঠিক করতে গতকাল সোমবার জরুরি বৈঠকে করেছে জনসন সরকার। এদিকে গতকাল ইউরোপীয় ইউনিয়নে ফাইজার-বায়োএনটেকের করোনার টিকার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এদিকে সৌদি আরব ও ওমান সব ধরনের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট এক সপ্তাহের জন্য স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে। এ ছাড়া সড়ক ও সমুদ্রপথেও সৌদি আরবে প্রবেশ এক সপ্তাহের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, ইতালিসহ বেশ কিছু দেশে করোনার নতুন ওই স্ট্রেইন শনাক্ত হওয়ায় রিয়াদ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে যে আন্তর্জাতিক ফ্লাইটগুলো এরই মধ্যে সৌদি আরবে রয়েছে, সেগুলোর ক্ষেত্রে এই স্থগিতাদেশ প্রযোজ্য হবে না। ওই ফ্লাইটগুলো সৌদি আরব ছেড়ে যেতে পারবে বলে জানানো হয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ থেকে এখনো যুক্তরাজ্যে ফ্লাইট বন্ধের সিদ্ধান্ত জানা যায়নি। তবে আজ মঙ্গলবার থেকে এক সপ্তাহের জন্য মাস্কাটগামী বাংলাদেশ বিমানের সব ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। এক সপ্তাহের জন্য জেদ্দা, রিয়াদ ও দাম্মামগামী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের সব ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মোকাব্বির হোসেন এক ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘২১ ডিসেম্বর থেকে এক সপ্তাহের জন্য সৌদি আরব সকল আন্তর্জাতিক গন্তব্যে ফ্লাইট বন্ধ করে দিয়েছে। সেখানে একটি ইঙ্গিত রয়েছে, এর পরে এই নিষেধাজ্ঞা আরো এক সপ্তাহ বাড়তে পারে। সে কারণে আমরা আপাতত এক সপ্তাহ সৌদিতে বিমানের তিনটি গন্তব্যের মোট ২১টি ফ্লাইট বাতিল করেছি।’

যুক্তরাজ্যে ভাইরাসের নতুন ধরনটি মূল ধরনের চেয়ে প্রায় ৭০ গুণ সংক্রামক। তবে এই ভাইরাসে মানুষের অসুস্থতা আরো জটিল চেহারা নিচ্ছে কি না, তা এখনো স্পষ্ট নয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা এমনিতেই মারাত্মক। ফলে করোনা হলে তাতে জীবনের ঝুঁকি থাকে। সে জন্যই দ্রুত করোনা ছড়ালে তা আরো মারাত্মক হয়ে উঠতে বাধ্য।

বিবিসি জানিয়েছে, স্থানীয় সময় গত রবিবার রাত ১১টা থেকে ফ্রান্স ৪৮ ঘণ্টার জন্য যুক্তরাজ্যের সঙ্গে তাদের সীমান্ত বন্ধ করে দেয়। এর ফলে যুক্তরাজ্যের ইংলিশ চ্যানেলের তীরবর্তী ডোভারের ফেরি ও টানেল দিয়ে পার হয়ে ফ্রান্সে ঢোকা বন্ধ হয়ে যায় সব ধরনের গাড়ি ও ট্রাকের। বর্তমানে দুই প্রান্তেই অসংখ্য গাড়ি ও ট্রাক আটকে পড়েছে।

ইউরোপের দেশ ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডস, আয়ারল্যান্ড, অস্ট্রিয়া, পর্তুগাল, ফিনল্যান্ড, সুইডেন, পোল্যান্ড, রুমানিয়া ও বেলজিয়াম এরই মধ্যে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বিমান চলাচল স্থগিত করেছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য দেশগুলোর নেতারা গতকাল এক বৈঠকে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার নানা দিক নিয়ে আলোচনা করেছেন।

ভারত এক ঘোষণায় জানিয়েছে, এ বছর যুক্তরাজ্য থেকে সব ধরনের ফ্লাইট বন্ধ রাখবে। যুক্তরাজ্য থেকে যাওয়া সব ধরনের ফ্লাইট বাতিল করেছে আর্জেন্টিনা। আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের সঙ্গে সব ধরনের ফ্লাইট বাতিল করেছে বুলগেরিয়া। কানাডা প্রাথমিকভাবে ৭২ ঘণ্টার জন্য যুক্তরাজ্যের সব ফ্লাইট বাতিল করেছে। চিলি জানিয়েছে, আজ মঙ্গলবার থেকে পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত যুক্তরাজ্য থেকে সব ধরনের ফ্লাইট বন্ধ রাখা হবে। কলম্বিয়াও যুক্তরাজ্যের সব ফ্লাইট বাতিল করবে। ক্রোয়েশিয়া জানিয়েছে, ৪৮ ঘণ্টার জন্য যুক্তরাজ্য থেকে যাত্রী পরিবহনকারী সব ফ্লাইট সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হবে।

এস্তোনিয়া, লাটভিয়া, লিথুয়ানিয়া যুক্তরাজ্যের সব ফ্লাইট স্থগিত করেছে। এ ছাড়া ইরান, ইসরায়েল, কুয়েত, মরক্কো, নরওয়ে, সুইজারল্যান্ড, তুরস্কও বিভিন্ন মেয়াদে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ফ্লাইট বাতিল রাখার ঘোষণা দিয়েছে।

গত সপ্তাহে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে (ডাব্লিউএইচও) করোনার নতুন ধরন সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়ে যুক্তরাজ্য বলেছিল, নতুন স্ট্রেইন খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। লন্ডনের নতুন যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছে, তাদের ৬০ শতাংশই নতুন ভাইরাসের কবলে পড়েছে।

এই ভাইরাসকে আটকাতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী জনসন ঘোষণা করেছেন, লন্ডন ও দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডে আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত লকডাউন থাকবে। গত শনিবার জনসন বলেছেন, ‘যত দিন যাচ্ছে, ততই এই ভাইরাস সম্পর্কে আমরা বেশি করে জানছি। ভাইরাস যদি চরিত্র বদল করে আক্রমণ করে, তবে আমাদেরও আত্মরক্ষার চরিত্র বদল করতে হবে।’

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক বলেছেন, যতক্ষণ পর্যন্ত মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া যাচ্ছে না, ততক্ষণ পর্যন্ত এই নতুন ধরনের ভাইরাসকে আটকানো কঠিন। কারণ এই ভাইরাস অতি দ্রুত ছড়ায়। যুক্তরাজ্যে এখন আশি বছরের বেশি বয়সীদের করোনার প্রতিষেধক দেওয়া চলছে।

ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা বলেছেন, যে নতুন ভাইরাল স্ট্রেইন পাওয়া গেছে তার নাম ই.১.১.৭। বৈজ্ঞানিক নাম ঠটও-২০২০১২/০১। এই ভাইরাল স্ট্রেইনের ছড়িয়ে পড়ার ক্ষমতা খুব বেশি। কারণ মানুষের শরীরে ঢুকলে খুব দ্রুত এসিই-২ (অঈঊ-২) রিসেপ্টর প্রোটিনের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে।

এদিকে ডাব্লিউএইচও জানিয়েছে, এই নতুন ভাইরাল স্ট্রেইন ডেনমার্কে ৯ জনের শরীরে খুঁজে পাওয়া গেছে। অস্ট্রেলিয়া ও নেদারল্যান্ডসে দুজনের শরীরে মিলেছে একই স্ট্রেইন। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, স্পেনে গত অক্টোবরেই ছড়িয়েছিল এই নতুন ভাইরাল স্ট্রেইন। স্পেনের কোনো ফার্ম থেকে এই ভাইরাল স্ট্রেইন ইউরোপে ছড়িয়ে থাকতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন।

নজর রাখছে বাংলাদেশ : স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘যুক্তরাজ্যের করোনার নতুন যে ধরনটির কথা বলা হচ্ছে, আমরা সে ব্যাপারে পর্যবেক্ষণ রাখছি। ইতিমধ্যে সিভিল এভিয়েশন ও বিমান কর্তৃপক্ষকে কঠোরভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, যাতে কোনো যাত্রী বিদেশ থেকে নেগেটিভ সনদ ছাড়া দেশে আসতে না পারে। যদিও এখনই যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বিমান চলাচল বন্ধের বিষয়টি ভাবা হচ্ছে না।’

ফাইজারের টিকার অনুমোদন দিল ইইউ : মার্কিন ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ফাইজার ও জার্মান কম্পানি বায়োএনটেকের করোনাভাইরাসের টিকার জরুরি ব্যবহারে অনুমোদন দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। গতকাল ইইউয়ের ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা দি ইউরোপিয়ান মেডিসিনস এজেন্সি (ইএমএ) এই অনুমোদন দেয়। আগামী ২৭ ডিসেম্বর থেকে টিকাকরণ কার্যক্রম শুরুর আশা করছে ইইউয়ের সদস্য দেশগুলো। এর আগে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, সুইজারল্যান্ডসহ বেশ কয়েকটি দেশে ফাইজারের টিকা অনুমোদন পেয়েছে। সূত্র : বিবিসি, এএফপি, দ্য ওয়াল।