রোজ সকালে ১ টা করে আমলকি খান, সুস্থ থাকুন সারা বছর

মিরর ডেস্ক : সারা বছর সুস্থ থাকার পাসওয়ার্ড হলো আমলকি। শুধু ফলই নয়, আমলকির পাতাও ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। ভিটামিন সি তে ভরপুর আমলকি। পুষ্টি বিজ্ঞানীদের মতে, আমলকিতে পেয়ারা ও কাগজি লেবুর চেয়ে তিন গুণ ও ১০ গুণ বেশি ভিটামিন সি রয়েছে। কমলালেবুর চেয়ে ২০ গুণ, আমের চেয়ে ২৪ গুণ এবং কলার চেয়ে ৬০ গুণ বেশি ভিটামিন সি রয়েছে।

চুল ভাল রাখতে আমলকির জুড়ি মেলা ভার। চুলের গোড়া মজবুত করে, খুসকির সমস্যা মেটায়, পাকা চুল প্রতিরোধ করে ।এখানেই শেষ নয় । চুলের বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে আমলকি। আমলকি হজমশক্তি বাড়ায়। বদহজম, কোষ্ঠকাঠিন্য ও পাইলসের সমস্যাও দূর করে। এক গ্লাস দুধ বা জলে আমলকি গুঁড়ো ও সামান্য চিনি মিশিয়ে দিনে দু’বার খান। এ্যাসিডিটি ধারেকাছে ঘেঁষবে না।রোজ সকালে আমলকির রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেলে ত্বকের কালো দাগ ছোপ দূর হয়, ত্বক উজ্জ্বল হয়।

আমলকিতে রয়েছে ফাইটো-কেমিক্যাল যা চোখের জন্য উপকারি। আমলকির রস দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়। এছাড়াও চোখের বিভিন্ন সমস্যা যেমন চোখের প্রদাহ, চোখ চুলকানো বা পানি পড়ার সমস্যা থেকে রেহাই মেলে। প্রতিদিন আমলকির রস খেলে নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ দূর হয়, দাঁত মজবুত থাকে। আমলকির টক ও তেতো মুখে রুচি ও স্বাদ বাড়ায়। রুচি বৃদ্ধি ও ক্ষুধা বাড়ানোর জন্য আমলকি গুঁড়ার সঙ্গে সামান্য মধু ও মাখন মিশিয়ে খান। রোজ সকালে নিয়মিত আমলকি খেলে ওজন কমবে দ্রুত।পাশাপাশি শরীর ঠাণ্ডা রাখে, পেশী মজবুত করে, হৃদযন্ত্র ও ফুসফুস ভাল রাখে। আমলকি ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রেখে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। সেই সাথে কোলেস্টেরলও কমায়।