বাড়ছে ভ্যাট আয়

করোনা মহামারীর প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও দেশে মূল্য সংযোজন কর তথা ভ্যাট আদায় বাড়ছে-এটি নিঃসন্দেহে একটি সুসংবাদ। দেশে করদাতারা আয়কর এবং ব্যবসায়ীরা সহজে ভ্যাট দিতে চান না-এই তথ্যটি প্রায়ই উচ্চারিত হয়ে থাকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এনবিআরসহ বিভিন্ন মহলে। প্রকৃতপক্ষে এই বক্তব্যটি সর্বাংশে সত্য নয়। তবে দেশে কর ও ভ্যাট আদায়ে যে কিছু জটিলতা রয়েছে এ কথা এনবিআরের চেয়ারম্যানও স্বীকার করেন। যে কারণে এর আদায় পদ্ধতি যথাসম্ভব সহজ সরল করার প্রচেষ্টা চলমান। করোনা পরিস্থিতির কথা বিবেচনায় রেখে এবার কর প্রদানের সময়সীমাও বাড়ানো হয়েছে, যাতে করদাতাদের স্বস্তি মিলেছে কিছুটা হলেও। প্রতি বছরের মতো এবারও ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত হয়েছে জাতীয় ভ্যাট দিবস-২০২০। সপ্তাহব্যাপী চলেছে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এবার ভ্যাট সপ্তাহের প্রতিপাদ্য-‘মুজিববর্ষে অঙ্গীকার, ইএফডিতে এনবিআর।’ উৎপাদন, ব্যবসা ও সেবার এই তিন খাতে এবার জাতীয় পর্যায়ে সম্মাননা পেয়েছে ৯টি প্রতিষ্ঠান। এর বাইরেও সেরা ভ্যাট প্রদানকারী হিসেবে জেলা পর্যায়ের আরও ১৩১টি প্রতিষ্ঠানকে দেয়া হয়েছে বিশেষ সম্মাননা। এ থেকেই প্রতীয়মান হয়ে যে, দেশে ভ্যাট আদায়ের পরিমাণ বাড়ছে। যদিও এ ক্ষেত্রে আমাদের আরও অনেকদূর যেতে হবে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে দেশব্যাপী সীমিত পরিসরে প্রধানত ভার্চুয়াল মাধ্যমে আয়কর মেলার পরই শুরু হয়েছে ভ্যাট দিবস তথা সপ্তাহ। এই উপলক্ষে সরকারী প্রতিষ্ঠানটি নানা উদ্যোগ-আয়োজন করেছে- যার অন্যতম লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য দেশের সর্বস্তরের নাগরিককে ভ্যাটদানে উৎসাহিত করা। এনবিআর কয়েক বছর আগে থেকেই নাগরিকদের কাছ থেকে ভ্যালু এ্যাডেড ট্যাক্স (ভ্যাট) বা মূল্য সংযোজন কর চালু করার উদ্যোগ নিলেও প্রধানত ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের অসহযোগিতা এবং আন্দোলনের কারণে তা বাস্তবায়ন হতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত এমনকি এক হারে অর্থাৎ, অভিন্ন ভ্যাট নির্ধারণ তথা বাস্তবায়ন করাও সম্ভব হয়নি। বরং প্রচলন করা হয়েছে স্তরভিত্তিক ভ্যাট তথা মূসকের। তবে বাস্তবতা হলো, দেশের সক্ষম শ্রেণীর অধিকাংশ যেমন আয়কর দিতে চান না, তেমনি ভ্যাট দিতে অনীহা প্রকাশ করেন একশ্রেণীর ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ী এবং দোকানদার। অথচ ভ্যাটের দায় গিয়ে বর্তায় সাধারণ নাগরিকের ওপর। যথাযথ ভ্যাট প্রদান কিন্তু নাগরিক দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে। রাষ্ট্রীয় কোষাগার সমৃদ্ধকরণ তথা দেশের সার্বিক উন্নয়নে মূসক বা ভ্যাটের ভূমিকা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। ব্যবসায়ীরা ভ্যাট দেন, এটা যেমন সত্যি, তেমনি আপনি-আমি সবাই কম ভ্যাট দিয়ে থাকি এটাও বাস্তব। এ জন্যই ভ্যাটের অপর নাম ভোক্তা কর। ব্যবসায়ীরা এক্ষেত্রে সরকারের পক্ষে ভূমিকা পালন করে থাকে ভ্যাট সংগ্রাহকের। এর পাশাপাশি এও সত্যি যে, অনেক দোকানদার কিছুটা ঝামেলা ও প্রধানত ফাঁকি দেয়ার প্রবণতা থেকে ভোক্তা প্রদত্ত ভ্যাট জমা দেন না রাষ্ট্রীয় কোষাগারে। অথচ ভ্যাট ঠিকই আদায় করেন ভোক্তার কাছ থেকে। সেক্ষেত্রে ভোক্তার অবশ্য কর্তব্য হবে বিক্রেতার কাছ থেকে পাকা রশিদ আদায় করা, যা অবশ্যই দিতে হবে ইএফডি মেশিনে প্রিন্ট করে। এতে ভোক্তা কর সরাসরি জমা হবে এনবিআরের এ্যাকাউন্টে। আর দোকানদার যদি ইএফডি মেশিন ব্যবহার না করে অথবা ভুয়া চালান দেয়, তাহলে বুঝতে হবে সে ভ্যাট ফাঁকি দিচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটে সরকার ভ্যাট নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করতে যাচ্ছে। যদিও তা সর্বত্র সম্ভব হয়নি অদ্যাবধি।

আয়কর মেলা ও ভ্যাট সপ্তাহের মূল উদ্দেশ্য প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ করের সীমানা বাড়িয়ে দেশের উন্নয়নের জন্য সরকারের আয় বৃদ্ধি করা। গত কয়েক বছরে সরকারের আয় যেমন বেড়েছে, তেমনি অর্থ ব্যয়ের সক্ষমতায় এগিয়ে গেছে দেশ। জাতীয় আয় বাড়ায় নিজস্ব অর্থায়নে বিশাল বাজেট প্রণয়ন, পদ্মা সেতুর মতো বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। স্বীকার করতেই হবে, নাগরিকদের মধ্যে আয়কর দেয়ার প্রবণতা আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। তার পরও কর প্রদানের ব্যাপার জনগণের মধ্যে এখনও অনাগ্রহী হওয়ার কারণ খতিয়ে দেখা সঙ্গত। আয়কর বাড়ানোর জন্য এনবিআর এবং আয়কর দাতাদের মধ্যে আস্থা ও বিশ্বাসের সম্পর্ক জরুরী। প্রয়োজনে কর প্রদান পদ্ধতি আরও সহজ এবং যুগোপযোগী হলে করদাতার সংখ্যা বাড়ানো সম্ভব হবে, দেশের উন্নতি ও সমৃদ্ধির জন্য যা হবে ইতিবাচক।