সৌদি কারাগারে অভিবাসীরা নির্যাতিত হচ্ছে: হিউম্যান রাইটস ওয়াচ

মিরর ডেস্ক : সৌদি আরব রিয়াদের ভঙ্গুর পরিস্থিতিতে কয়েকশ অভিবাসীকে আটক করছে। আটককৃতদের অনেকে তাদের নির্যাতন করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন। এ ছাড়া দেশটির বিভিন্ন কারাগারে শত শত অভিবাসনপ্রত্যাশী চরম নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। এদের মধ্যে বেশিরভাগই ইথিওপিয়ান। কিছু এশিয়ানও রয়েছেন এদের মধ্যে। মূলত সৌদি আরবে বৈধভাবে বসবাসের কাগজপত্র না থাকায় তাদের আটক করা হয়।

আজ বুধবার প্রকাশিত হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বন্দিদের সঙ্গে চরম খারাপ আচরণ করা হয়। কথায় কথায় মারধর করা হয়। ধারণক্ষমতা থেকে অনেক ছোট কক্ষে তাদের গাদাগাদি করে রাখা হয়। কারারক্ষীরা সামান্য কারণে রাবার মোড়ানো লাঠি দিয়ে তাদের মারধর করে। গত নভেম্বরে মারধরের কারণে তিনজন বন্দির মৃত্যু হয়েছে বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি।

দুজন বন্দি জানিয়েছে, তাদের এক বছর আগে আটক করা হয়। করোনার সময়ও তাদের এক সঙ্গে থাকতে বাধ্য করা হত। এ সময় কয়েকজন সংক্রমিত হয়েছে বলেও জানিয়েছে তারা। বন্দিরা জানায়, তারা একসঙ্গে সবাই ঘুমাতে পারে না। রাতে ও দিনে পালা করে ঘুমাতে হয়। ঘুমানোর জন্য বিছানাও দেওয়া হয় না তাদের। প্রতিবেদনে প্রকাশিত একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, শৌচাগারের মতো দেখতে একটা রুমে বন্দিরা গাদাগাদি করে শুয়ে আছে। তাদের পরস্পরের মধ্যে পর্যাপ্ত ফাঁকা নেই।

তবে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এ প্রতিবেদন সম্পর্কে সৌদি কর্তৃপক্ষের কোনো প্রতিক্রিয়া বা বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

২০১৮ সালের সরকারি পরিসংখ্যান অনুসারে দেশটিতে এক কোটি ২৬ লাখ বিদেশি শ্রমিক রয়েছে। এদের সংখ্যা দেশটির মোট জনসংখ্যার অর্ধেক।

সূত্র: আলজাজিরা।