‘ক্রীড়া-সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর পরিবার ওতপ্রোতভাবে জড়িত’

বিরল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : বঙ্গবন্ধু পরিবারের মতো ক্রীড়া অনুরাগী পরিবার পৃথিবীতে দ্বিতীয়টি নেই বলে মন্তব্য করেছেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরিবার যেভাবে ক্রীড়া অনুরাগী এবং ক্রীড়ার সঙ্গে যুক্ত; পৃথিবীর অনেক রাজনৈতিক নেতা আছেন, কিন্তু ক্রীড়াঙ্গনের সঙ্গে বা সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সঙ্গে এভাবে ওতপ্রোতভাবে জড়িত এরকম পরিবার পৃথিবীতে বিরল ঘটনা।

দিনাজপুরের বিরলে দুই মাসব্যাপী ফুটবল প্রশিক্ষণ ক্যাম্প এর শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মঙ্গলবার তিনি এসব কথা বলেন। বিরল মৌসুমি ক্রীড়া চক্রের উদ্যোগে এ ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

নৌ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা খুব ভাগ্যবান জাতি। আমাদের মহান নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু তিনি নিজেও একজন খেলোয়াড় ছিলেন। একজন ক্রীড়া সংগঠক ছিলেন। তিনি ঢাকা ওয়ান্ডারার্সের হয়ে ফাস্ট ডিভিশন খেলেছেন। শেখ কামাল তিনিও খেলোয়াড় ছিলেন। তিনি সাংস্কৃতিক অনুরাগী ছিলেন। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও ক্রীড়া অনুরাগী। যিনি আমাদের খেলোয়াড়দের অনুপ্রাণিত করতে মাঠে চলে যান। বঙ্গবন্ধুর পরিবার যেভাবে ক্রীড়া অনুরাগী এবং ক্রীড়ার সঙ্গে যুক্ত, সারাবিশ্বে দ্বিতীয় এমন কোন রাজনৈতিক পরিবার নেই।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারকে ইঙ্গিত করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিগত সময়ে শিল্প-সাহিত্য, খেলাধুলা চর্চা প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এখন ধারাবাহিকভাবে স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে টুর্নামেন্ট হচ্ছে। এগুলোর প্রতি অতীতের সরকারগুলোর মনোযোগ ছিল না। বর্তমান সরকারের আমলে ক্রীড়া খাতে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানও ক্রীড়াখাতের উন্নয়নে এগিয়ে আসছে। প্রশিক্ষণার্থী খেলোয়াড়দের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, প্রশিক্ষণ নিয়েই ভালো খেলোয়াড় হওয়া যাবেনা। ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা লাগবে, নিয়মিত ম্যাচ খেলতে হবে। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করতে হবে।

বিরল মৌসুমি ক্রীড়াচক্রের সভাপতি শফিকুল ইসলাম শফিকের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন-উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র সবুজার সিদ্দিক সাগর, সাধারণ সম্পাদক রমাকান্ত রায়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) জাবির মো. শোয়াইব, ক্রীড়াচক্রের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল ইসলাম রাজু।

পরে প্রতিমন্ত্রী দিনাজপুর জেলার সড়ক ও জনপথ বিভাগের চলমান ও বাস্তবায়িত প্রকল্প নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বৈঠক করেন। সভায় নৌ প্রতিমন্ত্রী বলেন, দিনাজপুর জেলায় সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থায় যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলমের সভাপতিত্বে মনোরঞ্জনশীল গোপাল এমপি, অ্যাডভোকেট জাকিয়া তাবাসসুম এমপিসহ সরকারি কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।