আরও ৬১ বীরাঙ্গনাকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি

মিরর ডেস্ক : মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের সহযোগীদের হাতে নির্যাতিত আরও ৬১ জন বীরাঙ্গনাকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিয়েছে সরকার। তাদের মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিয়ে সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) গেজেট জারি করা হয়েছে।

জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) ৭০তম সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বীরাঙ্গনারা এ স্বীকৃতি পেলেন। এ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাওয়া বীরাঙ্গনার সংখ্যা দাঁড়াল ৪০০ জনে।

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার বীরাঙ্গনাদের মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। তারা প্রতি মাসে ভাতাসহ মুক্তিযোদ্ধাদের মতো অন্যান্য সব সরকারি বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ভোগ করবেন।

গত ২৯ অক্টোবর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় পাকিস্তান হানাদার বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর, আলশামসসহ অন্য সহযোগীদের হাতে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতিত বীরাঙ্গনাদের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গেজেটভুক্তির জন্য আবেদন আহ্বান করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। নিজ নিজ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। আবেদনের সঙ্গে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র (এনআইডি/যুদ্ধকালীন কমান্ডারের প্রতিবেদন/স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবেদন, যদি থাকে) জমা দিতে বলা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটির মতামতসহ তা সরাসরি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে পাঠাবেন। এছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান, গবেষক, নারী সংগঠন, এনজিওর কাছে নারী বীর মুক্তিযোদ্ধা (বীরাঙ্গনা) সম্পর্কে তথ্য থাকলে তা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে দিয়ে গেজেটভুক্তির কাজে সহযোগিতার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

৬১ নারী মুক্তিযোদ্ধা (বীরাঙ্গনা) হলেন মোসা. সিজু বেগম, বেগম আছকিরূন নেছা, আশালতা পাল, রেনুকা চক্রবর্তী, মোছা. রেনু বেগম (মৃত), সাহেরা বেগম, মোছা. জরিনা বিবি, মোসা. রোপন বেওয়া, মোছা. মোজেফা খাতুন, হাজেরা বেগম, ফুল বরু ওরফে ফুল বানু, মনোয়ারা বেগম, সালেহা বেগম, আনোয়ারা বেগম, ছৈতুন নেছা, রিজিয়া বেগম, মৃত জোবেদা, মৃত হাচেন ভানু, মৃত হাচন ভানু, মৃত জয়ফুল, মৃত ছকিনা খাতুন, মৃত ফুল ভানু, মোছা. মনোয়ারা বেগম, জমিলা বেগম, তুলসী চন্দনা রায়, রাহেলা বেগম, মোছা. মানিকজান, মোছা. হালিমা বেগম, মোছা. ইয়ারজান, মোছা. সমর্থভান, মোছা. রেখা বেগম, মোছা. হাজেরা বেগম, মোছা. হালিমা বেগম, মোছা. ছায়েরা খাতুন, মোছা. ফরিদা বেগম, মোছা. লাইলী বেগম, মোছা. ফাতেমা বেগম, আয়েশা বেগম, মোসা. সালেহা খাতুন, তরুন বালা, মায়া রানী সাহা, মোসা. হাজেরা বেগম, মোছা. সুফিয়া বেগম, মোছা. হোসনেয়ারা বেগম, জামিরুন নেছা, জয়নব বিবি, জয়তুন বেগম, হাজেরা বেগম, খুদেজা, রুকেয়া, মমতা, আলিপজান, রহিমা বেগম, নবিরুন বেগম, সিমন্তী রানী চন্দ, জোৎস্না বেগম, আসমা বেগম, মোছা. জামেনা খাতুন, আমেনা বেগম, সুমি বিশ্বাস ও গুরুদাসী মন্ডল।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপসচিব রথীন্দ্র নাথ দত্ত এ প্রজ্ঞাপনে স্বাক্ষর করেন।