রক্তশূন্যতা কমায় কুমড়ার শাক

মিরর ডেস্ক : কুমড়া স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী।পুষ্টিগুণের কারণে অনেক চিকিৎসকও কুমড়া খাওয়ার পরামর্শ দেন। তবে অনেকের হয়তো জানা নেই কুমড়ার মতো এর পাতাও স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ বা চোখের সমস্যা, যেকোনো কিছুতেই কুমড়া শাক খেলে উপকারিতা পাওয়া যায়। এছাড়াও কুমড়া শাক খেলে আরও যেসব স্বাস্থ্য উপকারিতা পাওয়া যায়-

১. কুমড়ার পাতায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকে, যা দেহে রক্তের অভাব হতে দেয় না। যেহেতু নারী এবং শিশুদের মধ্যে আয়রনের ঘাটতি বেশি থাকে এ কারণে তারা খাদ্যতালিকায় এই পাতা রাখতে পারেন।

২. কুমড়া পাতায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। এ কারণে এটি ক্ষত সারাতে বেশ কার্যকর। তাই যদি কোনো আঘাত বা অভ্যন্তরীণ সমস্যা হয় তাহলে অবশ্যই এই শাক খেতে পারেন।

৩. কুমড়া শাক দাঁত ও হাড় মজবুত করতেও সহায়তা করে। দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সপ্তাহে ২-৩ বার কুমড়া শাকের তরকারি, স্যুপ বা কুমড়া পাতার রস খেতে পারেন। এতে চোখে কম দেখার সমস্যা দূর হয়। এছাড়াও, এটি ছানির মতো সমস্যাও প্রতিরোধ করে।

৪. ভিটামিন এ ও সি সমৃদ্ধ কুমড়া ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলে । সেই সঙ্গে চুলও ভালো রাখে।

৫. যেসব মায়েরা শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ান তাদের জন্যও কুমড়া শাক খুব উপকারী। কারণ এটি শরীরের প্রয়োজনীয় সব পুষ্টি সরবরাহ করে।

৬. প্রোটিন সমৃদ্ধ কুমড়ার শাক রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য খুব উপকারী। এছাড়া এই শাক খেলে রক্তের কোলেস্টেরলও নিয়ন্ত্রণে থাকে।