বিএনপির কোনও কৃতজ্ঞতাবোধ নেই: কাদের

মিরর ডেস্ক : বিএনপি সুবিধাবাদ জিন্দাবাদে বিশ্বাস করেই বলেই দুর্নীতিবাজদের দলে প্রশ্রয় দেয় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপির কোনও কৃতজ্ঞতাবোধ নেই।’

ওবায়দুল কাদের আজ বুধবার (২ ডিসেম্বর) সকালে চার লেনের দ্বিতীয় নয়ারহাট সেতু নির্মাণ কাজের উদ্বোধন শেষে ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন। তিনি তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ‘মানুষ ভয়াবহ দুঃসময় অতিক্রম করছে’- বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, ‘করোনা, বন্যা, সুপারসাইক্লোন, আম্পানের মতে প্রাকৃতিক দুর্যোগে দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপি কী ভূমিকা পালন করেছে- জাতি তা জানতে চায়। বিএনপি জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে গণমাধ্যম আর ফেসবুকে কথামালার বৃষ্টি ঝরিয়ে যাচ্ছে। মহামারির প্রভাবে গোটা বিশ্ব যখন টালমাটাল, তখন জীবন- জীবিকার চাকা সচল রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে দূরদর্শিতা দেখিয়েছেন, তা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হচ্ছে। জনগণের এই দুঃসময়ে বিএনপি কোনও ভূমিকা না রেখে শুধু বক্তৃতা-বিবৃতিতেই নিজেদের দায়িত্ব শেষ করেছে।’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারের কোনও ভালো কাজে বিএনপি প্রশংসা না করে উল্টো অন্ধ সমালোচনা করে যাচ্ছে অবিরাম। তারা আসলে দেশের আরও দুঃসময় এবং জনগণের করুণ অবস্থাই প্রত্যাশা করেছিল। বিএনপি ভেবেছিল মানুষ না খেয়ে, চিকিৎসা না পেয়ে রাস্তায় মরে থাকবে। কিন্তু শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে সেই পরিস্থিতি হয়নি বলেই বিএনপি নেতাদের মনে কষ্ট ও জ্বালা ধরেছে। এই জন্যই তারা সরকারের বিরোধিতা করতে গিয়ে দেশ ও জনগণের বিরোধিতায় নেমেছে। জনগণ বিএনপির এসব বুঝতে পেরেছে বলেই তাদের কথায় আর সাড়া দেয় না। বিএনপির আন্দোলনের ডাক এখন আষাঢ়ের তর্জন গর্জনই সার।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে বন্দি করে রাখা হয়েছে- মির্জা ফখরুলের এমন অভিযোগ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘জেনে-শুনে ও বুঝে মিথ্যাচার করা তাদের স্বভাব। সরকার বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা দেয়নি, সাজাও দেয়নি। মামলা করেছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার। আর সাজা দিয়েছেন আদালত। শেখ হাসিনাই বেগম জিয়ার প্রতি সদয় হয়ে দুই বার সাজা স্থগিত করেছেন। তারা এমন একটা দল যাদের ন্যূনতম কৃতজ্ঞতাবোধ নেই।’

বিএনপি দলগতভাবে হত্যা আর ষড়যন্ত্রের রাজনীতিতে বিশ্বাসী বলেই তারা নিজ দলে অপরাধীদের লালন করে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

রাজধানীতে প্রবেশ ও বের হওয়ার সড়কগুলোর সৌন্দর্যবর্ধন ও পরিচ্ছন্নতা

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রাজধানীর সঙ্গে আশপাশের জেলাগুলোও ঢাকা সড়ক জোনের অধীন। তাই এ জোন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। রাজধানীর সঙ্গে পুরো দেশের যোগাযোগ নিরবচ্ছিন্ন রাখা, সড়ক নিরাপত্তা বিধানসহ সংযুক্ত মহাসড়কগুলো পরিপাটি রাখা একটি চ্যালেঞ্জ। নবীনগর এলাকায় জাতীয় স্মৃতিসৌধের অবস্থান হওয়ায় এ মহাসড়কটি গুরুত্ব অনেক বেশি। তাই এ সড়কটি রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচ্ছন্নতা জরুরি।’

মন্ত্রী সংশ্লিষ্টদের এই সড়ক পরিচ্ছন্ন রাখা ও যত্রতত্র ব্যানার ফেস্টুন যাতে কেউ না লাগাতে পারে সে দিকে নজর দিতেও নির্দেশ দেন। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এয়ারপোর্ট রোডসহ রাজধানী ঢাকায় প্রবেশ এবং বের হওয়ার সড়কগুলোর সৌন্দর্যবর্ধন ও পরিচ্ছন্নতার ওপরও জোর দেন। তিনি স্বচ্ছতা ও গুণগত মান বজায় রেখে নয়ারহাট সেতুর কাজ এগিয়ে নিতে এবং নির্ধারিত সময়ে সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে এসময় উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য বেনজির আহমেদ, সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী শাহরিয়ার আলম, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খানসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।